মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সফরে এসেছেন পাক প্রধানমন্ত্রী হিসেবে। কিন্তু, ইমরান খান থাকলে ক্রিকেটের কথা উঠবে না, তাও কি হয়? বিশেষ করে যেখানে বিশ্বকাপ ক্রিকেটের রেশ এখনও কাটেনি। কাজেই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে পাকিস্তানি-মার্কিনিদের সামনে পাক প্রধানমন্ত্রীকে পড়তে হল পাকিস্তান ক্রিকেট দলের বিশ্বকাপ ব্যর্থতা নিয়ে প্রশ্নের মুখেও। আর তাতে এক বড় প্রতিশ্রুতি দিয়ে বসলেন ১৯৯২ সালে পাকিস্তানকে একমাত্র ক্রিকেট বিশ্বকাপ জেতানো অধিনায়ক।

শনিবারই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সফরে এসেছেন ইমরান। রবিবার ওয়াশিংটন ডিসির ক্যাপিটাল ওয়ান এরিনায় মার্কিন মুলুকের প্রবাসী পাকিস্তানিদের মুখোমুখি হন পাকিস্তানি প্রধানমন্ত্রী। সেখানে পাকিস্তানের রাজনৈতিক ও কূটনৈতিক বিভিন্ন বিষয়ের পাশাপাশি, পাকিস্তানি ক্রিকেট দল সাম্প্রতিককালে কেন ভাল খেলতে পারছে না - সেই প্রশ্নও করা হয়।

ইমরান যেরকম দেশের ভবিষ্যত নিয়ে বারবার নয়া পাকিস্তান গড়ার স্বপ্ন দেখিয়ে যান, সেইরকমই ক্রিকেট দল নিয়েও ইমরান বললেন পরের বিশঅবকাপের জন্য তিনি বিশ্বের সেরা ক্রিকেট দল হিসেবে পাকিস্তান দলকে গড়ে তোলার কাজ করা শুরু করেছেন। সেরা ক্রিকেটারদের দলে সুযোগ দেবেন। দৃঢ় কন্ঠে উপস্থিত জনতাকে তিনি বলেন, 'আমার কথা মিলিয়ে নেবেন'। তবে যেমন নয়া পাকিস্তান গড়ার কোনও রোডম্য়াপ তিনি দিতে পারেননি এখনও, তেমনই সেরা ক্রিকেট দল কীভাবে তৈরি করবেন, তাও তিনি বলতে পারেননি।  

বিশ্বকাপে ভারত ম্যাচের আগে সরফরাজ আহমেদের দলকে তিনি উদ্বুদ্ধ করার চেষ্টা করেছিলেন। বলেছিলেন ভয়ডরহীন ক্রিকেট খেলার কথা। জানিয়েছিলেন, ভয় পেয়ে গেলে নেতিবাচক ক্রিকেট আসে মাথায়। রক্ষণাত্মক কৌশল নিতে শুরু করে দল। তাতে অবশ্য কাজ হয়নি। ভারত ম্যাচে সামান্য প্রতিরোধ গড়তে পারেনি পাক ক্রিকেট দল। তারপর কয়েকটি ম্য়াচ জিতে সেমিফাইনালের আশা জাগিয়েও শেষ পর্যন্ত শেষ চারের শিকে ছেঁড়েনি পাকিস্তানের। তারপর বর্তমান পাক ক্রিকেট বোর্ডকে দায়ী করেছেন প্রাক্তন ক্রিকেটাররা। প্রধানমন্ত্রী তথা প্রা্তন অধিনায়ক এবার কী পদক্ষেপ নেন সেটাই দেখার।