বাড়িতে থাকার সময় বেশিরভাগ বাঙালিরই সময়টাই কাটে,ড্রয়িং রুমে বসে।কারণ ড্রয়িং রুমেই যে টিভি টা থাকে।পেপার পড়া থেকে শুরু করে,চা-মুড়ি খাওয়া,আড্ডা মারা সবই চলে এই ঘরে।তারপর ঘুমনোর সময় শুধু  বেডরুমে ফেরা।তাই সারাদিন যে জায়গাটায় সবার সবচেয়ে বেশী সময় কাটে,সেই জায়গাটা অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ।আপাত দৃষ্টিতে দেখতে গেলে, গল্প করে,টিভি দেখে সময় কাটিয়ে অনেকেই ভাবেন তারা ভাল আছেন। কিন্তু মাঝে মাঝে এসব কোনও কিছুই ভাল লাগেনা।এক ঘেয়েমি এসে যায় জীবনে,মন খারাপ হয়ে যায়।এটা শুধু বয়স্ক মানুষের ক্ষেত্রেই নয়,নব দম্পতিও এই অসুবিধায় পড়েন।পার্থিব সব কিছু থাকা সত্ত্বেও তবে কেন এমন হয়, উত্তর মেলেনা অনেক সময়।অনেকে আবার মন খারাপ হলে ঘর সাজান,পরিস্কার করেন ঘরের সব প্রান্ত।তারপর কিছুটা স্বস্তি মিললেও মুহূর্তেই তা হারিয়েও যায়।তবে এই ঘর সাঝানোটাই যদি আপনি বাস্তুর নিয়ম মেনে করেন, তাহলে দেখবেন আপানার সব অসুবিধা নিমেশে উধাউ।মনখারাপ হওয়া তো দূর হস্ত, সবসময়ই হাসিঠাট্টায় থাকবেন। তাহলে চলুন এবার জেনে নেওয়া যাক, ড্রয়িং রুমের জন্য বাস্তুর নিয়ম গুলি-  

আরও পড়ুন, কেমন কাটবে এই সপ্তাহ, দেখে নিন সাপ্তাহিক রাশিফল

১। ড্রয়িংরুম হওয়া উচিত পূর্ব দিক বা উত্তর দিক মুখ করে।তাহলে ভোরবেলা সূর্য-রশ্মির পজিটিভ এনার্জি ঘরে প্রবেশ করবে। 

২। ড্রয়িংরুমের দরজা পূর্ব অথবা পশ্চিম দিকে হলে ভাল হয়।তাতেই আপনার পরিবার ভাল থাকবে। 

৩। যখন ড্রয়িংরুমে বসে কোনও কিছু খাওয়াদাওয়া করেন,তখন দক্ষিণ পূর্ব দিকে প্লেট রেখে খাওয়া উচিত। 

৪। কখনোই যেনও আপনার ড্রয়িংরুম ৪ টির বেশী দিক না নিয়ে তৈরি হয়। 

৫। আপনার ড্রয়িংরুমে টিভি টা বসান দক্ষিণপূর্ব দিক বরাবর।এছাড়াও এই ঘরে যত ইলেক্ট্রিক্যাল গেজেটস আছে দক্ষিণপূর্ব দিকেই মুখ করে রাখুন।কারন এই দিকটা অগ্নিকোণ।

আরও পড়ুন, জেনে নিন দুর্গা পুজোয় কীভাবে বাড়িতে করবেন মঙ্গল ঘট স্থাপন

৬।  ড্রয়িংরুমের রঙ সবসময়ই হালকা হলে ভাল হয়। সাদা,হলুদ কিংবা হালকা সবুজ বেশী কার্যকরী।  

৭। আপনার ঘরে যদি ফায়ার প্লেস বানান, তাহলে সেটা  দক্ষিণ পূর্ব মুখ করে রাখুন। 

৮। আপনাকে ড্রয়িংরুমের ফার্নিচারের দিকেও খেয়াল রাখতে হবে। চেষ্টা করবেন,ফার্নিচারের আকার যেনও  বর্গক্ষেত্র বা আয়তক্ষেত্র মাপের হয়।

আশা করা যায়, বাস্তুর এই নিয়ম গুলি মেনে চললে আপনার পরিবার আগের থেকে ভাল থাকবে।