জওহরলাল নেহরু ও ইন্দিরা গান্ধীর পর নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে ভারতের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে এই নিয়ে দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় ফিরছেন নরেন্দ্র মোদী। এখনও পর্যন্ত সারা দেশে ৩৪৯টি আসনে জয়লাভ করতে চলেছে বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ।

বৃহস্পতিবার ভোটগণনার ফলাফলের যে ট্রেন্ড লক্ষ্য করা গিয়েছে, তাতে দেখা গিয়েছে, সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনে মোদী নেতৃত্বাধীন বিজেপি ২৭২টি আসনের অর্ধেক পথ অতিক্রম করতে পারবে। ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি এককভাবে ২৮২টি আসনে জয়লাভ করেছিল। এবার তার চেয়েও বেশি আসন পেতে পারে ভারতীয় জনতা পার্টি। 

প্রসঙ্গত, স্বাধীনতার পর ১৯৫১ সালে, লোকসভা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল টানা পাঁচ মাস ধরে। ১৯৫১-৫২ সালের লোকসভা নির্বাচনে তিন-চতুর্থাংশ আসনে জয়লাভ করে ক্ষমতায় এসেছিলেন দেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহরু।  ১৯৫১-৫২ সালের নির্বাচনে কংগ্রেস ৪৮৯টি আসনের মধ্যে ৩৬৪টি জিতেছিল। ১৯৫৭ সালে যখন নেহরু পুনর্নির্বাচনে অংশ নিলেন, তখন ভারত একটি কঠিন পর্যায়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছিল, কারণ ১৯৫৫ সালের হিন্দু বিবাহ আইন নিয়ে পার্টির বাইরে এবং অভ্যন্তরে একটা দ্বন্দ্ব চলছিল। যাইহোক, এই সবকিছুর মধ্যেও ১৯৫৭ সালের নির্বাচনে নেহরু ৩৭১টি আসনে বিপুলভাবে জয়লাভ করেন। ১৯৫১-৫২ সালে কংগ্রেসের ভোট ৪৫% থেকে বেড়ে ১৯৫৭ সালে ৪৭.৭৮% হয়।
 
২০১০ থেকে ২০১৪-র মধ্যে ইউপিএ সরকারের ব্যাপক দুর্নীতির অভিযোগগুলি প্রকাশ্যে আসতে শুরু করলে, ২০১৪ সালের সাধারণ নির্বাচনের জন্য বিজেপির প্রধানমন্ত্রীর প্রার্থী হিসেবে এবং তারপরে গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে নরেন্দ্র মোদীকে নিয়োগ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এরপর ২০১৯-এও নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে ভারতের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে এই নিয়ে দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় ফিরছেন নমো।