মহাগোঠবন্ধনের দয়ায় ঠাণ্ডাযুদ্ধ চলছেই। এবার নতুন ঝটকা খেল কংগ্রেস। নানা টালবাহানার পর বারানসীর আসনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে লড়াইয়ের ময়দানে সমাজবাদী পার্টি নামিয়ে দিল সেই বিক্ষুব্ধ সেনা তেজবাহাদুর যাদবকে। মিলল সমর্থনও। আপ-সহ অন্য অনেকগুলি ছোট দল এই সিদ্ধান্তকে  সমর্থন জানিয়েছে। তাঁদের প্রত্যাশা কংগ্রেস এই সিদ্ধান্তের সমর্থনে কংগ্রেস হয়তো প্রার্থী তুলে নেবে। সব ঠিক থাকলে ১৯ মে মোদীর সঙ্গেই আমনা-সামনা বিক্ষুব্ধ সেনা তেজবাহাদুরের। 

প্রসঙ্গত উত্তরপ্রদেশে সমাজবাদী পার্টি মহাগোঠবন্ধনে রয়েছে রাষ্ট্রীয় লোকদল ও বহুজন সমাজবাদী পার্টি। সর্বদলের সম্মতিক্রমেই স্থির হয় বারানসীতে তাদের হয়ে লড়বে শালিনী যাদব। এই অবস্থায় কংগ্রেসও অজয় রাইকেই পুনর্বার প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করে। 

গোটা দেশই ভেবেছিল কংগ্রেস থেকে মোদীর চোখে চোখ রেখে লড়বে প্রিয়ঙ্কা গাঁধী। কিন্তু তা যখন হল না, মহাগোঠবন্ধন থাকা দলগুলি বুঝতে পারছেন কংগ্রেসের অজয় রাই বা তাঁদের শালিনী যাদব মোদীকে  লড়াই দেওয়ার ব্যাপারে খুব বড় নাম নয়। ইতিমধ্যে নিজেকে স্বাধীন প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করে খবরে এসেছিলেন তেজবাহাদুর। এমত অবস্থায় সমাজবাদী পার্টি তাঁকেই বেছে নেয় প্রার্থী হিসেবে। 

"ভারতীয়র সেনার অন্দরে দুর্নীতি ছেয়ে গেছে। ক্ষমতা পেলে আমি তা দূর করার জন্যেই কাজ করতে চাই", এক সর্বভারতীয় গণমাধ্যকে এমনটাই জানালেন আত্মবিশ্বাসী তেজবাহাদুর। 

২০১৭ সালে জানুয়ারি কাশ্মীর থেকে সেনাবাহিনীর খাবারের নিন্দা করে একটি ভিডিও শেয়ার করেন তেজবাহাদুর। গোটা দেশে ভাইরাল হয় ভিডিওটি। তেজবাহাদুরের অভিযোগ ছিল সেনা আধিকারিকরা খাবার ও অন্য জিনিস বাইরে বিক্রি করে মোটা অর্থ  রোজগার করে। বিস্ফোরক অভিযোগের যথেষ্ট মাশুল গুণতে হয়েছে তেজবাহাদুরকে।  তাঁকে রাতারাতি ত্রিপুরায় বদলি করে দওয়া হয়। এখানেই শেষ নয় এবার কুম্ভমেলায় প্রহরারত অবস্থায় খবর পান হরিয়ানার শান্তিবিহার অঞ্চলে রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে ২২ বছর বয়সি ছেলে রোহিতের।  তাঁর সঙ্গে ঘটে যাওয়া অন্যায় অবিচারই হাতিয়ার তেজবাহাদুরের।

প্রসঙ্গত বারানসীতে ভোট  শেষ দফায় অর্থাৎ ১৯ মে। ইতিমধ্যে সিপিআইএমএল নেতা দীপঙ্কর ভট্টাচার্য , আম আদমি পার্টির অরবিন্দ কেজরিওয়াল সমাজবাদী পার্টির এই সিদ্ধান্তকে কুর্নিশ করেছে। তেজবাহাদুরের  পক্ষে মনোনয়ন জমা দিলেও সমাজবাদী দল শালিনী যাদবের মনোনয়ন তোলেনি। কে বলতে পারে যদি মনোনয়ন বাতিল হয়, তেজবাহাদুরের তো আসল লড়াই সিস্টেমের সঙ্গে। ভাঙতে হবে আরও অনেক পাথুরে পথ।