সপ্তাহখানেক আগে পশ্চিমবঙ্গের চন্দ্রকোনায় এক জনসভায় যোগ দিতে যাওয়ার পথে মুখ্য়মন্ত্রী তথা তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের কনভয় যাওয়ার পথে স্লোগান উঠেছিল জয় শ্রী রাম। যা শুনে মমতা বলেছিলেন তাঁকে 'গালাগাল' করা হয়েছে। যা নিয়ে বিতর্ক গড়িয়েছে অনেক দূর। এবার প্রায় একই ধরণের ঘটনার মুখোমুখি হলেন জাতীয় কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়াঙ্কা গান্ধী বঢরা। মধ্যপ্রদেশের ইন্দোরে তাঁর রোড শো চলাকালীন পাশে দাঁড়ানো বিজেপি সমর্থকরা 'মোদী-মোদী' স্লোগান তুললেন। তাঁদের অবশ্য চমকে দিলেন প্রিয়াঙ্কা। যেই কারণে ভাইরাল হল ঘটনার ভিডিও।

ইন্দোরের রাজ মহল্লা থেকে ৬ কিলোমিটার দীর্ঘ ওই রোড-শো শুরু হয়েছিল। মেরুণ শাড়ি পরে কপালে তিলক কেটে হাসিমুখে জনতার উদ্দেশ্যে হাত নাড়ছিলেন প্রিয়াঙ্কা। ছন্দটা কাটে রোড শো-র মাঝপথে। হঠাত রাস্তার পাশ থেকে একদল বিজেপি সমর্থক প্রিয়াঙ্কা-কে উদ্দেশ্য করে 'মোদী-মোদী' স্লোগান দিতে থাকেন। এরপরই কালো এসইউভি থেকে নেমে আসেন প্রিয়াঙ্কা। ওই বিজেপি সমর্থক চমকে দিয়ে এগিয়ে এসে তাঁদের সঙ্গে হাত মিলিয়ে কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক বলেন, 'আপনারা আপনাদের জায়গায় ঠিক, আমি আমার জায়গায়। শুভেচ্ছা রইল'। প্রিয়াঙ্কার এই ব্যবহারে অভিভূত হয়ে যান ওই বিজেপি সমর্থকরা। তাঁরাও প্রিয়াঙ্কাকে পাল্টা শুভেচ্ছা জানান।

The Magnanimous @priyankagandhi
Watch what happens when people shout "Modi Modi" at her convoy.pic.twitter.com/R9bn7Aa4v1

— Zainab Sikander (@zainabsikander) May 13, 2019

সোমবার (১৩ মে)  আরও একবার মধ্যপ্রদেশে ভোট প্রচারে এসেছিলেন প্রিয়াঙ্কা।  প্রিয়াঙ্কার সঙ্গে ছিলেন মধ্য়প্রদেশ ও ছত্তিশগড়ের দুই মুখ্যমন্ত্রী যথাক্রমে কমল নাথ ও ভূপেশ বঘেল। ওই একবার ছাড়া অবশ্য বাকি সময় নির্বিঘ্নেই চলেছে প্রিয়াঙ্কা গান্ধী বঢরার রোড শো। রাস্তার দুপাশে প্রিয়াঙ্কাকে চাক্ষুস দেখার জন্য জনতার মধ্যে ভালোই উৎসাহ দেখা গিয়েছে। অনেকেই এগিয়ে এসে তাঁকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।

বিজেপি সমর্থকদের সঙ্গে সৌহার্দ্য বজায় রাখলেও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে আক্রমণ করতে ছাড়েননি প্রিয়াঙ্কা। এর আগে প্রথমবার মধ্যপ্রদেশে নির্বাচনী প্রচারে এসে তিনি মোদীর সম্পর্কে বলেছিলেন, মোদী দীর্ঘদিন তপস্যা করেও ঔদ্ধত্য ত্যাগ করতে পারেননি। এবার তাঁর এই ছোট্ট সৌহার্দপূর্ণ ব্যবহারে তিনি সুকৌশলে কংগ্রেস যে ঘৃণার রাজনীতি করে না, সেই বার্তাই মধ্যপ্রদেশ-সহ গোটা দেশের মানুষের কাছে পৌঁছে দিলেন বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল।