সত্যি হচ্ছে অবশেষে। সম্ভবত পদত্যাগী করছেন রাহুল গান্ধী।  তার সিদ্ধান্তকে নতমস্তকে মেনে নিয়ে অবশেষে নতুন বি গল্পের সন্ধানে নেমে পড়লো কংগ্রেসের ওয়ার্কিং কমিটি। লোকসভা ভোটে কংগ্রেস এর বিপুল ভোট বিপর্যয়ের পর শনিবারই দলের কার্যকরী কমিটির বৈঠকে ইস্তফা দেওয়ার দাবি জানিয়েছিলেন রাহুল তার দাবি কংগ্রেসের পক্ষ থেকে খারিজ করে দেওয়া হয় তাকে বোঝানোর চেষ্টা করে হত্যার মা এবং বোন।  

কিন্তু তাতে বরফ গলেনি। রাহুল স্পষ্টতই সকলকে বারংবার জানিয়ে দিচ্ছেন তিনি কংগ্রেসের সভাপতি হিসেবে আর দায়িত্ব নিতে রাজি নন। পদ ছাড়ার ব্যাপারে তিনি এক প্রকার প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।  

একের পর এক মিটিং খারিজ করেছেন রাহুল বাতিল করেছেন। আগে থেকে স্থির হওয়া অ্যাপোয়েন্টমেন্টও। তাকে কোনভাবে নিরস্ত করতে না পেরেই কার্যত এবার হাল ছাড়তে চলেছেন সোনিয়া এবং প্রিয়ঙ্কা সূত্রের খবর এমনই। 

দলীয় সূত্রে খবর মা এবং বোনের থেকে সবুজ সংকেত পেয়ে কংগ্রেসের বর্ষিয়ান নেতা আহমেদ পাট এলোকেশী বেনু গোপালের সঙ্গে বৈঠক করে ইস্তফা সংক্রান্ত কাগজের কাজ সারতে চাইছেন রাহুল।  রাহুলের অনুপস্থিতিতে কে সামলাবে এই গুরুদায়িত্ব?  প্রিয়ঙ্কা কি ভাই এর থেকে ব্যাটনটা  তুলে নেবেন নিজের হাতে জল্পনা তুঙ্গে। 

সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনের আগে ব্যাপক প্রচার চালিয়েছিলেন রাহুল গান্ধী।  কিন্তু তার প্রচার কার্যত মুখ থুবরে পড়ে তার নিজের কেন্দ্র আমেঠিতেও। তাতে অবশ্য সৌজন্যের ক্ষেত্রে কোনো ফাঁক রাখেন নি রাহুল। দেশের জনগণের সিদ্ধান্ত তিনি মাথা পেতে মেনে নেন একই সঙ্গে শুভেচ্ছা জানান নবনির্বাচিত প্রধানমন্ত্রীকেও।  কিন্তু এত বড় সিদ্ধান্ত চেয়ে রাহুল নিতে চলেছে তা কি অতি ঘোর বিরোধীরাও ভাবতে পেরেছিলেন!