বাঁকুড়া আসন থেকে তাঁর একলক্ষ ভোটের ব্যবধানে হারের জন্য সরাসরি সিপিএম-কে দায়ী করলেন তৃণমূল নেতা এবং পঞ্চায়েত মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়। তাঁর চাঞ্চল্যকর অভিযোগ, অর্থের বিনিময়েই বিজেপি-কে ভোট ছেড়ে দিয়েছে সিপিএম। 

নিজের অভিযোগের স্বপক্ষে যুক্তিও দিয়েছেন সুব্রত। তাঁর যুক্তি, গত  বিধানসভা নির্বাচনে তালড্যাংরা থেকে হেরে গেলেও ৭৩ হাজার ভোট পেয়েছিলেন অমিয় পাত্র। কিন্তু এবার গোটা বাঁকুড়া লোকসভার সাতটি বিধানসভা মিলিয়ে তিনি পেয়েছেন এক লক্ষ ভোট। সুব্রতর প্রশ্ন, একটি বিধানসভা থেকে সত্তর হাজারের বেশি ভোট পাওয়ার পরেও এবার কী করে গোটা বাঁকুড়া মিলিয়ে মাত্র এক লক্ষ ভোট পেলেন অমিয় পাত্র। সুব্রতর আরও দাবি, তিনি গতবার মুনমুন সেন বাঁকুড়া থেকে যত ভোট পেয়েছিলেন, এবারে তার থেকে বেশি ভোট পেয়েও লক্ষাধিক ভোটের ব্যবধানে হারতে হয়েছে তাঁকে। 

সুব্রতর কথায়, "আগে রাম, পরে বাম" নীতিতে ভোট করিয়ে বাঁকুড়ায় তাঁকে হারিয়েছে সিপিএম। এর পিছনে অর্থের লেনদেনও রয়েছে বলে অভিযোগ তাঁর। পাল্টা বিধানসভা ভোটের সময় বিজেপি সিপিএম-কে সাহায্য করবে বলে দাবি করেছেন সুব্রত। 
প্রবীণ এই রাজনীতিবিদের অবশ্য দাবি, তৃণমূল ফের ঘুরে দাঁড়াবে। আগামী বিধানসভা নির্বাচনেও রাজ্যে তৃণমূলের সরকার গড়তে কোনও অসুবিধা হবে না বলে দাবি করেছেন তিনি। গোটা রাজ্যে তৃণমূলের খারাপ ফল এবং বিজেপি-র উত্থানের পিছনের কারণ তার লোকসভা কেন্দ্র বাঁকুড়াতেই অনেকটা স্পষ্ট বলে দাবি করেছেন সুব্রত। 

তৃণমূল নেতার অভিযোগের জবাবে বাঁকুড়ার সিপিএম প্রার্থী অমিয় পাত্র বলেন, "এতদিন সিপিএমের নেতা, কর্মীদের মারধর করে বাড়িছাড়া, এলাকাছাড়া করেছে। বাধ্য হয়ে কেউ বিজেপি-তে ভোট দিলে আমাদের কিছু করার নেই। আমাদের গরিব দল। সুব্রতবাবুর মাথা খারাপ হয়ে গিয়েছে বলে এসব বলছেন।"