মেরুকরণের রাজনীতিতে এর আগেও সরব ছিলেন অপর্ণা সেন। এবার তোপ দাগলেন সোজা প্রধান মন্ত্রী মোদীকে। দেশের গণতান্ত্রিক সঙ্কটে কোনও ঘটনার এখন আর প্রতিবাদ করা যাবে না। নাম না করেই মোদী সরকারের বিরুদ্ধে সুর চড়ালেন অপর্ণা সেন। 


'প্রতিবাদ করলেই যেকোনও মুহূর্তে আপানাকে জেলে ঢুকিয়ে দিতে পারে-সাবাধান'

প্রসঙ্গত, আগেও একাধিকবার দেশের বুদ্ধিজীবিদের অন্যতম মুখ হিসেবে দেখা গিয়েছে অপর্ণা সেনকে। বারবারই তিনি  আওয়াজ তুলেছেন মেরুকরণের রাজনীতি থেকে এনআরসি,সিএএ-র বিরুদ্ধে। প্রতিবাদে করে প্রশ্ন তুলেছেন কেন বারবার শুধু মুসলিমরাই আক্রমণের শিকার হচ্ছে। তবে এবার নাম না করেই কেন্দ্রকে আক্রমণ করলেন অপর্ণা। টুইটারে অভিনেত্রী লেখেন, দয়া করে দেশের কোনও ঘটনার প্রতিবাদ করবেন না। নয়তো বলা হতে পারে,আপনি টুকরো টুকরো গ্যাঙের প্রতিনিধি। আর না হলে একজন সন্ত্রাসবাদী বা খালিস্তানি। যেকোনও মুহূর্তে আপানাকে জেলে ঢুকিয়ে দিতে পারে। তাই সাবাধান।'

  'টুকরো টুকরো গ্যাঙ' কী, এল কোথা থেকে

অতীতে একাধিক সময় দেখা গিয়েছে, সরকারের বিরুদ্ধে সরব হলেই প্রতিবাদকারীকে 'টুকরো টুকরো গ্যাঙের প্রতিনিধি বা দেশদ্রোহী বলেই আক্রমণ করেছে বিজেপির নেতা-মন্ত্রী। জেএনইউ হোক কিংবা কৃষি প্রত্যাহার, প্রতিবাদ করলেই দেশদ্রোহীর তকমা দেওয়া হয়েছে। আর এমনই একটা মুহূর্তে অপর্ণা সেন বলেন ,'স্বাধীনতার পরে জরুরি অবস্থা ছিল গনতন্ত্রের এক কলঙ্কিত অধ্যায়। যা ক্রমশ আরও ভয়াবহ রূপ নিয়েছে।' উল্লেখ্য,  'টুকরো টুকরো গ্যাঙ' শব্দটি জন্ম গেরুয়া শিবিরেই। জেএনইউ-র বিরুধে বরাবরই বিজেপি অভিযোগ করে এসেছে এখানে ভারতকে টুকরো করার চক্রান্ত করা হয়। সে কারণেই বিচ্ছিন্নাতাবাদীদের  'টুকরো টুকরো গ্যাঙ' নামে ঢাকে তাঁরা।