একাধিক ছবিতে নিজেদের চেহার সঙ্গে চিত্রনাট্যের চরিত্রের মিল ঘটাতে গিয়ে বিপাকে পড়তে হয় তারকাদের। কখনও বেশি মোটা, কখনও আবার রোগা, কখনও পেশি তৈরি করার জন্য নানা সময় ওষুধের আশ্রয় নিতে হয় তারকাদের। যাতে চরিত্রটি সুন্দরভাবে ফুঁটিয়ে তোলা সম্ভব হয় পর্দায়। কিন্তু এমনই সব পদ্ধতি গ্রহণ করতে গিয়ে বেজায় সমস্যাতে পড়তে হয় তারকাদের।

এবারও তেমনটাই ঘটল কঙ্গনা রানওয়াতের সঙ্গে। এই বিতর্কে এর আগে একাধিকবার নাম জড়িয়েছে আমির খানের। লগান ছবি থেকে শুরু করে দঙ্গল। দুই ক্ষেত্রেই নিজের বডির ওপর বেশি আলোকপাত করেছিলেন তিনি। এবার জয়ললিতার বায়োপিকে মূখ্যভূমিকায় অভিনয় করতে গিয়ে বিপাকে পড়তে হল কঙ্গনা রানওয়াতকে। সেখানেই দেখা যা যে তিনি জয়ললিতার বয়সকালের চরিত্রে যখন অভিনয় করতে গিয়েছেন তখনই বেগ পেতে হয়েছিল পরিচালককে। 

 

 

মুখে প্রস্থেটিক মেকআপ করলেও চেহারার পরিবর্তন করতে গিয়ে রীতিমত হরমোনের ওষুধ খেতে হয়েছে কঙ্গনা রানওয়াতকে। প্রথম জীবনে ছিল তাঁর চরিত্র অনুযায়ী চেহারা মানানসই হলেও পরবর্তীর জন্যই নেওয়া এই পদক্ষেপ। প্রকাশ্যে এই লুক চলে আসার পরই তোপের শিকার হতে হয় কঙ্গনাকে। ছবিতে অভিনয়ের জন্য তাঁকে বাড়াতে হয়েছিল মোট ৬ কেজি ওজন। তাঁর জন্য নিতে হয়েছিল স্টেরয়েডও।