শুক্রবার প্রয়াত হলেন বলিউডের বিখ্যাত অভিনেত্রী শওকত কইফি। বেশ কয়েকদিন ধরেই তিনি বার্ধক্য জণিত কারনে অসুস্থ ছিল। চলছিল চিকিৎসাও। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৯৩ বছর। শেষ একামাসে একাধিকবার তিনি অসুস্থ হন। পরিস্থিতি গুরুতর হলে তাঁকে মুম্বইয়ের এক বেসরকারী হাসপাতালে ভর্তি করা হয় বলে পরিবারের পক্ষ থেকে এদিন জানানো হয়েছে। 

স্বাস্থ্যের অবস্থার অবনতি ঘটার ফলে শওকত কইফিকে আইসিইউ-তে দেওয়া হয়। শেষের কয়েকটা দিন তিনি বাড়িতেই কাটাতে চেয়েছিলেন। তেমনটাই করা হয় পরিবারের পক্ষ থেকে। বাড়িতে দুদিন থাকার পরই তিনি মৃত্যুবরণ করেন। শুক্রবার সন্ধ্যের সময় তাঁর মৃত্যু ঘটে। এদিন রাতের মধ্যেই সেই খবর ছড়িয়ে পড়ে বিটাউনে। মুহুর্তে নেমে আসে শোকের ছায়া। 

শওকত কইফ ও তাঁর স্বামী কইফি আজমি দুজনেই অভিনয় জগতের জনপ্রিয় মুখ। দুজনেই তাঁর পিপলস থিয়েটর অ্যাসোসিয়েশনের পথ অন্যতম কাণ্ডারী ছিলেন। একের পর এক ছবিতে নিজের অভিনয়ের দক্ষতাতে যে ছাপ তিনি ফেলে গিয়েছিলেন চলচ্চিত্র জগতের তা এক বড় সম্পদ। সালাম বোম্বে, বাজার, উমরাওজান, প্রভৃতি ছবিতেই তাঁর অনবদ্য উপস্থাপনা সকলের নজর কেড়েছিল। শেষবারের মত শওকত কইফকে দেখা গিয়েছিল সাথিয়া ছবিতে।

 

খবর পাওয়া মাত্রই ছোক প্রকাশ সোশ্যাল মিডিয়া মারফত সমবেদনা জানান অনেকেই। কয়েকদিন আগেই কলকাতা চলচ্চিত্র উৎসবের শেষ দিনে কলকাতায় উপস্থিত হয়েছিলেন অভিনেত্রী শাবানা আজমি। মমতার ডাকে সাড়া দিয়ে নজরুল মঞ্চে সেদিন এসে জানিয়ে ছিলেন কলকাতাকে নিয়ে একাধিক তাঁর ভালোলাগার কথা। কয়েকদিনের মধ্যেই শোকের ছায়া নেমে এল অভিনেত্রীর বাড়িতে। খবর পাওয়া মাত্রই সোশ্যাল মিডিয়ায় শোকবার্তা জ্ঞাপন করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।