ব্রিটেনে নিজের থাবা ক্রমশ চওড়া করছে করোনা ভাইরাসের নতুন স্ট্রেন। লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা। করোনার নতুন স্ট্রেন নতুন করে আতঙ্ক বিস্তার করছে গোটা বিশ্ব জুড়েও। এই পরিস্থিতিতে ফের লকডাউনের পথে হেঁটেছে ব্রিটেন। ইংল্যান্ডের ক্রীড়া ক্ষেত্রেও ফের চোখ রাঙাচ্ছা বিশ্ব মহামারী ভাইরাস। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে ক্রমশ বাড়ছে কোভিড ১৯-এ আক্রান্তের সংখ্যা। নতুন করে ৪০ জন আক্রান্ত হওয়ার ঘটনায় উদ্বেগ ও আতঙ্ক ক্রমশ বাড়ছে।

ইপিএলের লিগ কমিটির দেওয়া তথ্য অনুযায়ী,গত বছরের ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহ এবং জানুয়ারি শুরুতে মোট ৯৮৪ জন ফুটবলারের করোনা পরীক্ষা হয়েছে। সেখানেই নতুন করে ৪০ জনের শরীরে কোভিডের উপস্থিতি প্রমাণিত হয়েছে। তাদের সকলকেই পাঠানো হয়েছে নিভৃতবাসে। সুরক্ষার কথা মাথায় রেখে বাধ্য প্রিমিয়ার লিগ কর্তৃপক্ষ প্রতি সপ্তাহে সকলের দু-বার করে করোনা পরীক্ষা বাধ্যতামূলক ঘোষণা করেছে। কিন্তু তাতেও মিলছে না স্বস্তি। ক্রমশ ইপিএলে করোনা আক্রান্তের সংখ্যাটা দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর হচ্ছে। তবে এখনও প্রতিযোগিতা বন্ধ করার কোনও পরিকল্পনা নেই।

নতুন মরসুম শুরুর পর থেকেই করোনার প্রকোপ বাড়ছিল ইপিএলে। গত বছরের ডিসেনম্বরের তৃতীয় সপ্তাহ পর্যন্ত প্রায় ১৫০০ জন ইপিএলে আক্রান্ত  হয়েছিলেন করোনা ভাইরাসে। নতুন বছরের শুরুতে নতুন করে আরও ৪০ জন করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবরে ক্রমশ সমস্যা বাড়ছে প্রিমিয়ার লিগ কর্তৃপক্ষের। ভ্যাকসিন আসার পরও যেভাবে করোনা ভাইরাস থাবা বসাচ্ছে তাতে আতঙ্ক বাড়ছে প্লেয়ারদের মধ্যেও। ফলে নতুন বছরেও অব্যাহত কোভিড ১৯-এর থাবা।