তিন বার ফাইনালে উঠে তিন বারই চ্যাম্পিয়ন। আইএসএল ফাইনালে চেন্নাইয়ান এফসিকে ৩-১ গোলে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হল অ্যান্টোনিও হাবাসের এটিকে। ফের দায়িত্ব নিয়েই দলকে চ্যাম্পিয়ন করে নিজের মগজাস্ত্রের পরিচয় দিলেন হাবাস। একইসঙ্গে তিনবার কলকাতাকে চ্যাম্পিয়ন করে নজিরও গড়লেন এটিকে কোচ। করোনা ভাইরাসের আতঙ্কের কারণে শনিবার গোয়ার ফাতোরদা স্টেডিয়ামে দর্শকশূণ্য মাঠে হয় আইএসএলের ফাইনাল ম্যাচ। মাঠ দর্শকহীন হলেও প্লেয়ারদের মধ্যে তাগিদের কোনও খামতি ছিল না। ফাইনালে কলকাতার হয়ে জোড়া গোল করে নায়ক হলেন জাভিয়ের হার্নান্ডেজ। অপর গোলটি করেন এডু গার্সিয়া। চেন্নাইয়ের হয়ে একটি গোল করেন ভাল্সকিস। 

আরও পড়ুনঃ স্থগিত হয়ে গেল আইলিগের ফিরতি ডার্বি, জানিয়ে দিল এআইএফএফ

ফাইনালে ম্যাচের শুরু থেকেই রক্ষণ সামলে আক্রমণাত্বক ফুটবল খেলে এটিকে। ম্যাচের ১০ মিনিটেই প্রথম গোল করে এটিকে-কে লিড এনে দেন জাভিয়ের হার্নান্ডেজ। প্রথম গোল হজম করে আক্রণের ঝাঁঝ বাড়ায় চেন্নাইও। যদিও ম্যাচের প্রথমার্ধে এটিকে ডিফেন্সকে ভাঙতে পারেনি চেন্নাইয়ের অ্যাটাকিং লাইন। ফাইনালে বল পায়ে খুব একটা নিজের জাদু দেখাতে পারেননি এটিকের অন্যতম সেরা প্লেয়ার রয় কৃষ্ণা। ম্যাচের ৪০ মিনিটে হ্যানমস্ট্রিংয়ে চোটের কারণে মাঠ ছাড়তে বাধ্য হন রয় কৃষ্ণা। প্রথমার্ধে ১-০ গোলে এগিয়ে থেকেই বিরতিতে যায় এটিকে। দ্বিতীয়ার্ধে শুরুর ৪৮ মিনিটেই লিড বাড়ায় হাবাসের দল। গোল করে কলতারা লিড ২-০ করেন এডু গার্সিয়া। ২-০ গোলে পিছিয়ে পড়েও দমে যায়নি চেন্নাই। ৬৯  মিনিটে গোল করে কোয়েলের দলের হয়ে ব্যবধান কমান ভাল্সকিস। ২-১ করার পর ম্যাচে ফেরার মরিয়া চেষ্টা করে ওয়েন কোয়েলের দল। কিন্তু ম্যাচের ইনজুরি টাইমে ৯৩ মিনিটে এটিকের হয়ে তৃতীয় ও নিজের দ্বিতীয় গোল করে জয় নিশ্চিত করে  জাভিয়ের হার্নান্ডেজ। 

আরও পড়ুনঃ সতর্ক থাকুন, মারণ ভাইরাসের বিরুদ্ধে একসঙ্গে লড়াইয়ের বার্তা বিরাটের

আরও পড়ুনঃ করোনার থাবায় স্তব্ধ ক্রীড়া বিশ্ব, চলছে শুধু 'খেলা ভাঙার খেলা'

ম্যাচ শেষের বাঁশি বাজতেই উল্লাসে মাতেন এটিকে প্লেয়ার, কোচ থেকে সাপোর্টিং স্টাফরা। মাঠে দর্শক না থাকায় উৎসবে কিছুটা খামতি থাকলও, মানুষের স্বাস্থ্যের বিষয়টি সবার আগে দেখা উচিত বলে আগেই জানিয়েছেন এটিকে কোচ হাবাস। এইনিয়ে তৃতীয়বার ট্রফি জয় করে আইএসলের সর্বাধিক ট্রফি জয়ের তকমা নিজেদের দখলে রাখল এটিকে। কলকাতায় ফিরে বিশেষ সেলিব্রেশনের চিন্তাও রয়েছে এটিকে কর্তাদের মাথায়। মাঠে যেতে না পারলেও, তৃতীয়বারের জন্য ভারতসেরা হয়ে খুশি এটিকে সমর্থকরা।