লাতিন আমেরিকার বিশ্বকাপের যোগ্যতা অর্জন পর্বে দুটি ম্যাচ খেলেছেন আর্জেন্টাই সুপারস স্টার। সূত্র মারফত জানা গিয়েছে , পায়ে হালকা চোট থাকলেও, দেশের জন্য বিশ্বকাপে যোগ্যতা অর্জনের মত গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে মাঠের বাইরে থাকতে চাননি এল এম টেন। লা লিগার ম্যাচ খেলে গিয়েই দেশের হয়ে পরপর দুটি ম্যাচ খেলেন মেসি। চোটকে কিছুটা উপেক্ষাই করেন লিও। দেশের হয়ে খেলার পরই ফের স্পেনে ফিরে যান আধুনিক ফুটবলের ম্যাজেশিয়ান।

স্পেনে ফিরেও বিশ্রাম পাননি লিওনেল মেসি। কারণ অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের বিরুদ্ধে লা লিগার গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে মেসিকে বাইরে রাখতে চাননি বার্সেলোনার কোচ রোনাল্ড কোম্যান। কিন্তু ম্যাচটিতে-০ গোলে হারতে হয় বার্সাকে। এরপরই মেসির শারীরিক ধকল ও পায়ে সামান্য চোটের কথা ভেবে চ্যাম্পিয়নস লিগের ম্যাচ মেসিকে দলের বাইরে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বার্সার হেডস্যার। আগামি দিনের পুরোপুরি সুস্থ ও চনমনে মেসিকে পাওয়ার জন্যই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন কোম্যান।

ভারতীয় সময় মঙ্গলবার মধ্যরাতে চ্যাম্পিয়ন্সরে লিগের ম্যাচে ডায়নামো কিয়েভের বিরুদ্ধে মাঠে নামবে রোনাল্ড কোম্যানের দল। বর্তমানে ৩ ম্যাচ ৯ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষ রয়েছে বার্সা। এই ম্যাচে শুধু মেসি নয়, বিশ্রাম দেওয়া হয়েছে মিডফিল্ডার ফ্রাঙ্ক ডি জংকেও। বার্সা কোচ জানিয়েছেন,'আমরা ঠিক করেছি এই ম্যাচে মেসিকে বিশ্রাম দেওয়া হবে। লিয়ো ছাড়াও খেলবে না মিডফিল্ডার ফ্র্যাঙ্কি ডি জং। দেশের জার্সিতে মেসি এবং ফ্র্যাঙ্কি সমস্ত ম্যাচেই পুরো ৯০ মিনিট খেলেছে। এ বার একটু ওদের স্বস্তি দেওয়া প্রয়োজন।' তবে মেসি এই বিষয়ে এখনও কোনও মুখ না খোলায়,চ্যাম্পিয়ন্স লিগের মত গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে দলের প্রধান প্লেয়ারকে বাইরে রাখার কোম্য়ানের সিদ্ধান্ত নিয়ে উঠছে নানা প্রশ্ন।