গতকাল রাত থেকে শুরু হয়েছে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের নতুন মরশুম। কালকে রাতে মাঠে নেমেছিল বার্সেলোনা, জুভেন্তাস, পিএসজি, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের মতো বড় দলগুলি। কাল রাতে হওয়া ম্যাচগুলোর মধ্যে সবচেয়ে উত্তেজক ম্যাচ ছিল গতবারের ইউসিএল রানার্স আপ পিএসজি বনাম গতবারের ইউরোপা লিগ সেমিফাইনালিস্ট ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের মধ্যে ম্যাচটি। নেইমার, এমব্যাপেদের কাছে এই ম্যাচ ছিল বদলার ম্যাচ। দু বছর আগে এই ম্যান ইউয়ের কাছেই হেরে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ষোলো পর্যায় থেকে ছিটকে গিয়েছিল পিএসজি। 

খেলার গতির বিরুদ্ধে ২১ মিনিট নাগাদ পেনাল্টি পায় ম্যান ইউ। ব্রুনো ফার্নান্দেজের নেওয়া পেনাল্টি বাঁচিয়ে দেয় পিএসজি গোলরক্ষক কেইলোর নাভাস। কিন্তু দেখা যায় ব্রুনো শট নেওয়ার আগেই গোললাইন থেকে এগিয়ে এসেছিলেন তিনি। ফলে নতুন নিয়ম অনুযায়ী পুনরায় পেনাল্টি নিতে দেওয়া হয় ম্যান ইউকে। এইবার কোনও ভুল না করে পেনাল্টি থেকে ম্যান ইউকে এগিয়ে দেন ব্রুনো। প্রথমার্ধে স্কোর কার্ডে আর কোনও পরিবর্তন হয় না। দ্বিতীয়ার্ধে পিএসজি আক্রমণে ঝাঁঝ বাড়ায়। পাল্লা দিয়ে চলতে থাকে ম্যান ইউয়ের প্রতি আক্রমন। কিন্তু ৫৫ মিনিটে নেইমারের কর্নার ক্লিয়ার করতে গিয়ে নিজেদের গোলে বল ঢুকিয়ে দেন ম্যান ইউ ফরোয়ার্ড অ্যান্থনি মার্শিয়াল। প্রথমার্ধে তিনিই আদায় করেছিলেন পেনাল্টি, এবার নিজের জালে বল জড়িয়ে খলনায়ক হয়ে যান তিনি। তবে তাকে অনুশোচনার হাত থেকে বাঁচিয়ে দেন মার্কাস র‍্যাশফোর্ড। ৮৮ মিনিটে তার দুর্দান্ত গোলে আরও একবার প্যারিসের মাটিতে পিএসজিকে হারিয়ে দেয় রেড ডেভিলসরা। দুর্দান্ত গোলকিপিংয়ের জন্য ম্যাচের সেরা নির্বাচিত হন ডেভিড দি গিয়া। 

অপরদিকে কালকের প্রথম ম্যাচে ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো হীন জুভেন্তাস ২-০ গোলে হারায় ডায়নামো কিয়েভ-কে। জোড়া গোল করে ম্যাচের নায়ক হন জুভে স্ট্রাইকার আলভারো মোরাতা। অপর একটি ম্যাচে হাঙ্গেরির ফেরেনকেভর্সকে ৫-০ গোলে উড়িয়ে দেয় এফ সি বার্সেলোনা। পেনাল্টি থেকে গোল করেন লিওলেন মেসি। দ্বিতীয় ফুটবলার হিসাবে টানা ১৬ মরশুম চ্যাম্পিয়ন্স লিগে গোল করার রেকর্ড ছুঁয়ে ফেললেন তিনি। এছাড়াও গোল পেয়েছেন ফিলিপ কুটিনহো, আনসু ফাতি-রাও