২৫ নভেম্বর হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে প্রয়াত হয়েছেন ফুটবল কিংবদন্তী দিয়াগো মারাদোনা। এখনও বিশ্ব জুড়ে চলছে ৮৬ বিশ্বকাপ জয়ের নায়ককে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন। কিন্তু অপরদিকে, একের পর এক অভিযোগে ক্রমশ ঘনীভূত হচ্ছে মারাদোনার মৃত্যু রহস্য। এর আগে মারাদোনার মৃত্যুতে তার চিকিৎসক  লিওপল্ডো লুকের গাফিলতির অভিযোগ উঠেছিল। যেই কারণে লিওপল্ডোর বাড়িতে পুলিসি তল্লাশি চালানোর পাশাপাশি জেরার সম্মুখীন হতে হয়ছিল তাকে। এবার মারাদোনার মৃত্যুতে গাফিলতির অভিযোগ উঠল ফুটবল কিংবদন্তীর মনোবিদ অগাস্টিনা কোসাচেভের।

ঘটনায় ইতিমধ্যেই কোসাচেভের বাড়িতে ও ক্লিনিকে তল্লাশি চালিয়েছে। কোসাচভের মোবাইল ফোনও বাজেয়াপ্ত আর্জেন্টাইন পুলিস। জেরার মুখে পড়তে হয়েছে অগাস্টিনা কোসাচেভকে। মারাদোনাকে তিনি কি কি ওষুধ দিতেন জেরায় জানতে চাওয়া হয়। ঘটনায় সরকারি বিবৃতিতে কোসাচেভ জানিয়েছেন,'দিয়েগো আমার খুব ভাল বন্ধু ছিল। সব সময় চেষ্টা করেছি ও যাতে কোনওরকম মানসিক চাপে না ভোগে।' কোসাচেভের আইনজীবী জানিয়েছেন,'মারাদোনাকে যা ওষুধ দেওয়া হয়েছিল সেগুলো থেকে কারও শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে পারে না। পুলিশকে সব রকমের সহযোগিতা করছে কোসাচভ।'

পুলিসের তরফে জানানো হয়েছে, 'যদি দেখা যায় মারাদোনার চিকিৎসায় গাফিলতি হয়েছিল তা হলে কড়া শাস্তির মুখে পড়বে ওঁর ডাক্তাররা। আমরা আপাতত প্রতিটি দিকই খতিয়ে দেখছি।' একদিকে মারাদোনার সম্পত্তির মালিকানা নিয়ে বিবাদ অপরদিকে মারাদোনার মৃত্যুর কারণ নিয়ে তদন্ত। দুই বিষয় নিয়ে ক্রমশই ক্ষোভ বাড়ছে ফুটবল কিংবদন্তীর ভক্তদের মধ্যে। দুই ঘটনারই দ্রুত সমস্যার সমাধানের দাবি জানিয়েছে ফুটবল ঈশ্বরের সমর্থকরা।