সাও পাওলো পুলিশ বিভাগে ব্রাজিলিয়ান ফুটবল তারকা নেইমার জুনিয়রের বিরুদ্ধে ধর্ষণের মতো গুরুতর অভিযোগ দায়ের হয়েছে। জানা গিয়েছে গত ১৫ মে প্যারিসের এক হোটেলে ওই ঘটনা ঘটেছে বলে দাবি করেছেন এক ব্রাজিলিয় মহিলা। ৩১ মে তারিখে পুলিশে অভিযোগ দায়ের হয়। এরপরই ঘটনার কথা জানাজানি হয়েছে।
নেইমার গত ১৫ তারিখ প্যারিসের ওই হোটেলে ওই মহিলার সঙ্গে সাক্ষাতের কথা মেনে নিলেও, ধর্ষণের অভিযোগ মানতে চাননি। তড়িঘড়ি এক ইনস্টাগ্রাম ভিডিও প্রকাশ করে তিনি জানিয়েছেন গত মার্চ মাস থেকে ওই মহিলার সঙ্গে তাঁর কথা বার্তা শুরু হয়। এরপর নেইমারের খরচেই তিনি প্যারিসে এসেছিলেন। তিনিই নেইমারকে হোটেলে ডেকেছিলেন।

তারপর কী হয়েছিল? নেইমারের ভাষায়, 'চার দেওয়ালের মধ্যে এক পুরুষ ও মহিলার মধ্যে স্বাভাবিক সম্পর্ক, যা যো কোনও জুড়ির মধ্যে হয়, পরের দিন সকলে তা ভুলেও যায়'। ১৭ মে তারিখে ওই মহিলা সাও পাওলোয় ফিরে যান। নেইমারের দাবি, এরপরেও তাঁদের মধ্যে কথাবার্তা জারি ছিল। ওই মহিলা তাঁর ছেলের জন্য নেইমারকে প্।যারিস থেকে একটি স্মারকও আনতে বলেছিলেন।

তার মাঝেই এই অভিযোগ ওঠায় নেইমার খুবই বিস্মিত বলে দাবি করেছেন। তিনি তাঁদের দুজনের বার্তালাপের একটি অংশ ইনস্টাগ্রাম পোস্টে শেয়ার করেছেন। দাবি করেছেন, তাঁদের মধ্যে অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ কথাবার্তা হয়েছে, কিন্তু এই অভিযোগ ওছঠার পর সবকিছু যাতে সবাই জানতে পারে, তার জন্য তিনি তচার সবচটাই ফাঁস করে দেবেন।
 
নেইমারের জনসংযোগ দলের পক্ষ থেকে প্রকাশিত এক বিবৃতিতে অবশ্য অভিযোগ অস্বীকার করার সঙ্গে সঙ্গে ফুটবল মেগাস্টারের উপর ওই মহিলা জুলুমবাজি চালাচ্ছিলেন বলেও পাল্টা অভিযোগ করা হয়েছে। গত কয়েকদিন ধরেই নাকি নেইমারের কাছ থেকে চাপ দিয়ে অর্থ আদায়ের চেষ্টা করছিলেন ওই মহিলা। আর সেই জুলুম মেনে না নেওয়ার পরই এই ভুয়ো অভিযোগ তোলা হয়েছে।