জোরকদমে চলছে লাল হলুদ শিবিরের অনুশীলন। ফুটবলারদের ফিট রাখতে নতুন উপায় অবলম্বন করলেন রবি ফাওলার। আইএসএলে ভালো ফল করার লক্ষ্যে হকি ফিটনেস প্রধান হাতিয়ার রবি ফাউলারের। লাল-হলুদ ব্রিগেডের প্রস্তুতিতে সেটাই কাজে লাগাচ্ছেন লিভারপুলের কিংবদন্তী ফুটবলার। কারণ অন ফিল্ড গেমের ফুটবলের মতোই মধ্যে হকি খেলোয়াড়দেরও দরকার চূড়ান্ত ফিটনেস। তাই ফাউলারেরও পছন্দ হকির ট্রেনিং পদ্ধতি। 

লকডাউনে ঘরে থাকাকালীন হকি লিগ দেখেছেন লিভারপুল কিংবদন্তি। গোটা ম্যাচ নিজে নিজেই বিশ্লেষণ করে তৈরি করেছেন একাধিক প্ল্যান। হকি খেলার গতি, ডিফেন্সিভ স্ট্র্যাটেজি এবং স্ট্রাইকারদের বল নিয়ে এগোনোর দক্ষতাটাই নজর কেড়েছে লাল-হলুদ কোচের। সেই ব্যাপারটি থেকে প্রাপ্ত কিছু মতলব এখন লাল হলুদ ক্লাবের খেলার ধরনে মিশিয়ে দিতে চাইছেন তিনি। 

অল্প জায়গার মধ্যেও কয়েকজনকে কাটিয়ে হকি খেলোয়াড়দের বল নিয়ে এগিয়ে যাওয়ার কৌশলই এখন ইস্টবেঙ্গল ফুটবলারদের দেখাচ্ছেন এই রবি ফাওলার। তাঁর মতে বল নিয়ে যদি খুব দ্রুত আক্রমণে এগিয়ে যাওয়া যায়, তবে সহজেই প্রতিপক্ষ রক্ষণকে নাস্তানাবুদ করা যায়। তবে এ শুধু মুখের কথা। বাস্তবে টেকনিকটি কিভাবে কার্যকরী হবে তা জানতে আরও কিছুদিন অপেক্ষা করতে হবে লাল হলুদ ফুটবলারদের। 

এত সবকিছু ভেবেচিন্তেই লাল-হলুদ শিবিরে হকি ফিটনেস ট্রেনিং শুরু করে দিয়েছেন রবি। কোচের দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই পজেশনিং ফুটবলের কথা শোনা গিয়েছিল তাঁর মুখে। এখন এই অভিনব পন্থা। অবশ্য বিশ্বফুটবলে হকি ফিটনেসের চল বহু আগে থেকেই শুরু হয়েছে। ১৯৭০ বিশ্বকাপে এই পন্থা অবলম্বন করতে দেখা গিয়েছিল ক্রুয়েফের হল্যান্ড দলকে।একইরকমভাবে ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেড কোচ থাকাকালীন প্রাক্তন হকি খেলোয়াড়কে অ্যানালিসিস্ট হিসাবে নিয়ে এসেছিলেন লুই ভান গল। এবার রবি ফাওলারের হাত ধরে প্রথমবার ভারতীয় ফুটবলের অনুশীলনে এল হকি ফিটনেসের ধারণা। লাল-হলুদ ফুটবলাররা এই নতুন পন্থার আগমনে কতটা সাফল্য পান সেটাই এখন দেখতে আগ্রহী সমর্থকরা।