শনিবার বিশ্বজুড়ে ক্রীড়াপ্রেমীদের নজর জার্মানির উপর। করোনা আতঙ্ক কাটিয়ে শুরু হচ্ছে বুন্দেসলিগা। বিশ্বের সেরা পাঁচটি জনপ্রিয় ফুটবল লিগের মধ্যে একটি। ইতালি, স্পেন, ইংল্যান্ডে ফুটবলে ফেরার তৎপরতা থাকলেও, তা সবার আগে করে দেখালো জার্মানি প্রশাসন ও বুন্দেশলিগা কর্ত-পক্ষ। যার কারণে যথেষ্ট চাপও রয়েছে তাদের উপর। ফিফা থেকে উয়েফা সকলের দৃষ্টি থাকবে ম্যাচগুলির উপর। নিরাপত্তা থেকে শুরু করে প্লেয়ার, সাপোর্টিং স্টাফ ও কোচেদের সুরক্ষার বিষয়টি একশো শতাংশ নিশ্চিত করতে যথাসাধ্য চেষ্টা করছে জার্মানি প্রশাসন ও বুন্দেশলিগা কর্তৃপক্ষ। ফাঁকা স্টেডিয়ামে ম্যাচ হলেও একাধিক বিধিনিষেধ জারি করা হয়েছ কর্তৃপক্ষের তরফে। শুক্রবার বুন্দেশলিগার জন্য ৫২ পাতার নির্দেশিকা তৈরি হয়েছে।  সেখানেই বিস্তারিতভাবে লেখা রয়েছে সমস্ত নিয়মাাবলী। যার মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ নিয়মাবলীগুলি হল-

 

 

আরও পড়ুনঃকরোনা আতঙ্ককে তুড়ি মেরে উড়িয়ে আজ শুরু বুন্দেশলিগা, পড়ুন ৬ ম্যাচের প্রিভিউ

বুন্দেশলিগার গুরুত্বপূর্ণ নিয়মাবলীঃ

১. দর্শকশূন্য মাঠ
সম্পূর্ণ ফাঁকা স্টেডিয়ামে হবে ম্যাচগুলি। একজন দর্শকও মাঠে প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না।  এমনকী জোয়াকিম লো'কে পর্যন্ত গ্যালারিতে বসার অনুমতি দেওয়া হবে না। ফুটবলার বাছতে বুন্দেশলিগার বহু ম্যাচে তিনি গ্যালারিতে থেকেছেন। কিন্তু তিনিও ব্রাত্যর তালিকায়।

২. পুরো মাঠ স্যানিটাইজ করা হবে
ম্যাচ শুরুর আগে গোটা মাঠ স্যানিটাইজ করা হবে। বিরতিতে আরও একবার হবে সানিটাউজেশন। এমনকী ম্যাচ চলকালীন মাঝেই মাঝেই স্যানিটাউজ করা হবে ফুটবল।

৩. মাঠে মোট ২১৩ জন
দল, কোচিং স্টাফ, সংবাদ মাধ্যমের কর্মী, বুন্দেশলিগার কর্মকর্তা, পুলিস, প্রশা,সনের কর্মী সহ মাঠে মোট ২১৩ জন লোকস থাকবে। এর থেকে একজনও বেশি লোক মাঠে থাকবে না। মাঠে ফুটবলাররা ম্যাচ চলাকালীন ছাড়া যতটা সম্ভব মানা হবে সামাজিক দুরত্ব।

৪. খেলা শুরুর আগে স্বাস্থ্য পরীক্ষা
মাঠে প্রবেশের আগে সবার তাপমাত্রা পরীক্ষা বাধ্যতামূলক করা হতে পারে। অ্যাওয়ে ম্যাচে মাঠে যাওয়ার সময় পুরো স্কোয়াডকে ২ বাসে করে যাওয়া-আসা করতে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। বিরতির সময় নতুন জার্সিও পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে প্লেয়ারদের।

৫. থুতু ফেলায় নিষেধাজ্ঞা
ম্যাচ চলাকালীন মাঠে প্লেয়ারদের থুতু ফেলা উপরও জারি করা হয়েছে নিষেধাজ্ঞা। যদি কোনও প্লেয়ার মাঠে থুতু ফেলে তাহলে তাকে হলুদ কার্ড দেখানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়ছে।

৬. অহেতুক  শারীরিক সংঘর্ষ নয়
ম্যাচ চলাকালীন অহেতুক ফুটবলারদের শারীরিক সংঘর্ষে জড়াতে নিষেধ করা হয়েছে। এমনকাী গোলের পর সেলিব্রেশন করাতেও রয়েছে বিধি নিষেধ। গোলের সেলিব্রেশন করা যাবে, শুধু পায়ে পায়ে ঠেকিয়ে। অথবা কনুই দিয়ে।

৭. হ্যান্ডশেক ও গ্রুপ ছবিতে নিষেধাজ্ঞা
ম্যাচের আগে ও পরে হ্যান্ডশেক করার ক্ষেত্রেও জারি করা হয়েছে নিষেধাজ্ঞা। বন্ধ ম্যাচের আগে গ্রুপ ছবি তোলাও।  প্লেয়ারদের অকারণে জটলো হতেও মানা করে হয়েছে।

৮. ৫ জন পরিবর্ত ফুটবলার
সম্প্রতি পরীক্ষামূলকভাবে ফিফা এই সময়ে ফুটবল টুর্নামেন্টগুলিতে ৫ জন করে পরিবর্ত নেওয়ার অনুমতি দিয়েছে। যদিও সেই নিয়মের পালন লিগ কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তের উপরে ছেড়েছে। বুন্দেশলিগায় পালন করা হবে ফিফার নয়া নিয়ম। একটি দল নিতে পারবে পাঁচটি পরিবর্ত।

৯. মেডিকেল স্টাফদের জন্য আলাদা ব্যবস্থা
প্লেয়ার, কোচ ও সাপোর্টিং স্টাফদের স্বাস্থ্যের উপর বিশেষ নজর দেওয়া হয়েছে। মেডিকেল স্টাফদের জন্য আলাদা ব্যবস্থা করা হচ্ছে। মেডিকেল স্টাফের সংখ্যাও কিছুটা বাড়ানো হয়েছে। মেডিকেল স্টাফদেরও মানতে হবে সমস্ত বিধিনিষেধ।

১০. দু'সপ্তাহ অন্তর কোভিড১৯ টেস্ট
ম্যাচের আগে ফুটবলাররা হোটেল রাত কাটিয়ে নামবে মাঠে। প্রতি দু'সপ্তাহ অন্তর কোভিড টেস্ট করাতে হবে ফুটবলারদের। এরমধ্যে যদি কোনও ফুটবলার কোভিড টেস্ট পজেটিভ আসে। তাহলে সংশিষ্ট ফুটবলারকে হাসপাতালে ভর্তি হতে হবে। টিমকে নয় দিনের জন্য কোয়ারান্টিনে চলে যেতে হবে। সেক্ষেত্রে সেই টিমের লিগের খেলা কী হবে, তা অবশ্য পরিষ্কার করা হয়নি। 

১১. নির্দিষ্ট কিছু মিডিয়ার প্রবেশ
 মিডিয়া প্রবেশ বলতে হাতেগোনা। চারজন ফটোগ্রাফার। সাংবাদিক সব মিলিয়ে দশের বেশি নয়।  সংবাদ মাধ্যমের কর্মীরা কোথায় বসবেন, তাও পরিষ্কার করে বলা হয়েছে নিয়মাবলীতে। যা নিয়ে বিবাদের শুরু হয়েছে জার্মানি সংবাদ মাধ্যমে। যদিও কর্তৃপক্ষের তরফে জানানো হয়েছে সুরক্ষা ও নিরাপত্তার সবা র আগে আর তারজন্যেই এই সিদ্ধান্ত।

১২.প্রেস কনফারেন্স হবে না
ম্যাচ শেষে কোনও দলের কোচ, প্লেয়ার বা অন্য কেউ কোনও প্রেস কনফারেন্স করতে পারবে না। মিক্সড জোনে কাউকে দাঁড়াতে দেওয়া হবে না। ম্যাচের পর টিভি সাংবাদিকদের জন্য সাক্ষাৎকারের ব্যবস্থা থাকবে। কিন্তু টিভি ক্যামেরা ও সংশ্লিষ্ট ফুটবলারের মাঝের পাতলা স্ত্রিন থাকবে।

আরও পড়ুনঃলকডাউনে বাড়িতেই ট্রেনিং শুরুর সিদ্ধান্ত কোহলির

আরও পড়ুনঃআন্তর্জাতিক ক্রিকেটের আগে ফেরানো উচিত ঘরোয়া ক্রিকেট, মত শাস্ত্রীর