ছোটবেলায় বাবা ২৬ শে মা, মৃত্যুশয্যায় মাকে কী বলে আটকে রাখতে চেয়েছিলেন কিং খান

First Published 26, Mar 2020, 9:15 AM IST

স্টার হোক বা সাধারণ মানুষ, ভাগ্যের অন্তিম পরিহাস থেকে মুক্তি নেই কারুরই। মুখে সোনার চামচ নিয়ে জন্ম হওয়া স্টার কিড ছিলেন না শাহরুখ খান। প্রথম জীবনে তাঁর যুদ্ধ অনেকেরই অজানা। মা-বাবা চোখে দেখে যেতে পারেননি শাহরুখ খানের বাদশা হওয়া। এক সাক্ষাৎকারে মাকে নিয়ে আবেগঘন স্মৃতি শেয়ার করেছিলেন শাহরুখ খান। 

বর্তমানে বলিউডের বাদশা কিং খান। তবে কেরিয়ারেরর শুকুটা মোটেই এভাবে ছিল না। হাজার ঝড় সহ্য করার পরই নিজের জায়গা তৈরি করেছিলেন কিং খান।

বর্তমানে বলিউডের বাদশা কিং খান। তবে কেরিয়ারেরর শুকুটা মোটেই এভাবে ছিল না। হাজার ঝড় সহ্য করার পরই নিজের জায়গা তৈরি করেছিলেন কিং খান।

পর্দায় পা রাখার আগে থেকে কেরিয়ারের প্রথম জীবন, একাধিক প্রতিকূলতার সামনে দাঁড়াতে হয় তাঁকে।

পর্দায় পা রাখার আগে থেকে কেরিয়ারের প্রথম জীবন, একাধিক প্রতিকূলতার সামনে দাঁড়াতে হয় তাঁকে।

ছোটবেলাতেই শাহরুখ খান বাবাকে হারিয়ে ছিলেন। পরিবারের ভার এসে পড়েছিল কাঁধে। মাকে তখন থেকেই আরও আঁখরে ধরে বেঁচে ছিলেন কিং খান।

ছোটবেলাতেই শাহরুখ খান বাবাকে হারিয়ে ছিলেন। পরিবারের ভার এসে পড়েছিল কাঁধে। মাকে তখন থেকেই আরও আঁখরে ধরে বেঁচে ছিলেন কিং খান।

তিনি প্রথম থেকেই মনে করতেন, যে মানুষের কাজ অসম্পূর্ণ থেকে যায় তিনি বেঁচে থাকার আপ্রাণ চেষ্টা করেন।

তিনি প্রথম থেকেই মনে করতেন, যে মানুষের কাজ অসম্পূর্ণ থেকে যায় তিনি বেঁচে থাকার আপ্রাণ চেষ্টা করেন।

যাঁর কাজ শেষ তিনি নিশ্চিন্তে মৃত্যুকে স্বীকার করে নেন। এমন ধারনা থেকেই মাকে আটকে রাখতে চেয়েছিলেন কিং খান।

যাঁর কাজ শেষ তিনি নিশ্চিন্তে মৃত্যুকে স্বীকার করে নেন। এমন ধারনা থেকেই মাকে আটকে রাখতে চেয়েছিলেন কিং খান।

তখন কিং খানের বয়স মাত্র ২৬ বছর। মৃত্যুর সঙ্গে লড়ে চলেছেন তাঁর মা। তখন কিং খান শেষ চেষ্টা করেছিলেন তাঁর আবেগ দিয়ে।

তখন কিং খানের বয়স মাত্র ২৬ বছর। মৃত্যুর সঙ্গে লড়ে চলেছেন তাঁর মা। তখন কিং খান শেষ চেষ্টা করেছিলেন তাঁর আবেগ দিয়ে।

মাকে গিয়ে সাফ জানিয়ে দিয়োছিলেন তিনি তাঁর জীবন শেষ করে দেবেন। দিদিকে দেখবেন না, আর মদ্যপান করা শুরু করে দেবেন।

মাকে গিয়ে সাফ জানিয়ে দিয়োছিলেন তিনি তাঁর জীবন শেষ করে দেবেন। দিদিকে দেখবেন না, আর মদ্যপান করা শুরু করে দেবেন।

তাঁর ধারনা ছিল, এমনটা বলার পর হয়তো মায়ের মনে ভয় হবে, এবং তিনি প্রাণ পন সুস্থ হয়ে ওঠার চেষ্টা করবেন না।

তাঁর ধারনা ছিল, এমনটা বলার পর হয়তো মায়ের মনে ভয় হবে, এবং তিনি প্রাণ পন সুস্থ হয়ে ওঠার চেষ্টা করবেন না।

কিন্তু তেমনটা কিছুই হয়নি। যদিও মাকে বলা কথা রাখেননি কিং খান। বদলেছেন ভাগ্য, পালন করেছেন দায়িত্ব।

কিন্তু তেমনটা কিছুই হয়নি। যদিও মাকে বলা কথা রাখেননি কিং খান। বদলেছেন ভাগ্য, পালন করেছেন দায়িত্ব।

কিং খানের মা-বাবার আর ছেলের সুপারস্টার হয়ে ওঠা দেখা হয়নি। কিন্তু পরিস্থিতির সঙ্গে যুদ্ধ করেই ঘুরে দাঁড়ায়ে ছিলেন কিং খান।

কিং খানের মা-বাবার আর ছেলের সুপারস্টার হয়ে ওঠা দেখা হয়নি। কিন্তু পরিস্থিতির সঙ্গে যুদ্ধ করেই ঘুরে দাঁড়ায়ে ছিলেন কিং খান।

loader