সমর্থকদের হাসির জন্য নিজেদের উজার করে দেবে কেকেআর, আরব থেক জানাল নাইটরা

First Published 22, Aug 2020, 5:50 PM

আইপিএল খেলতে বৃহস্পতিবারই আরব আমিরশাহি পৌছে গিয়েছে কলকাতা নাইট রাইডার্স। আবুধাবি পৌছে হোচেলে আইসোলেশনে রয়েছেন কার্তিক, শুভমান গিল, কুলদীপ যাদবরা। কেউ কারও সঙ্গে দেখাও করতে পারছেন না। নিয়ম মেনে আগামি ৬ দিনের মধ্যে তিনবার করোনা পরীক্ষা করা হবে সকল প্লেয়ারদের। পজেটিভ এলে তবেই অনুশীলনে নামতে পারবেন কেকেআর তারকারা। তবে বিদেশের মাটিতে খেলা হলেও, নাইটদের মনে যে ইডেন গার্ডেন্স ও বাংলার কোট কোটি কেকেআর ভক্তরা রয়েছে সেই কথা বারবার স্বীকার করেছেন দীনেশ কার্তিক, অন্যান্য প্লেয়ার সব কেকেআর ম্যানেজমেন্টও। বিশ্ব জুড়ে করোনা ভাইরাসের কঠিন পরিস্থিতিতেও ফ্যানেদের জন্য নিজের উজার করে দিতে প্রস্তুত নাইটরা। 
 

<p>আবুধাবি পৌছে দীনেশ কার্তিক জানিয়েছেন,'সারা বিশ্ব যে ধরনের সব ঘটনার সাক্ষী তাতে সত্যি উদ্বেগ তৈরি হয়েছে। এ বারের আইপিএল অন্যান্য বারের চেয়ে অনেক আলাদা। অনেক কঠিন পরীক্ষা দিতে হবে সকলকে।'<br />
&nbsp;</p>

আবুধাবি পৌছে দীনেশ কার্তিক জানিয়েছেন,'সারা বিশ্ব যে ধরনের সব ঘটনার সাক্ষী তাতে সত্যি উদ্বেগ তৈরি হয়েছে। এ বারের আইপিএল অন্যান্য বারের চেয়ে অনেক আলাদা। অনেক কঠিন পরীক্ষা দিতে হবে সকলকে।'
 

<p>সমর্থকদের উদ্দেশে কেকেআর অধিনায়কের বার্তা,'তবে এটা বুঝতে পারি, আমরা ভাল খেললে আপনাদের মুখে হাসি ফোটে। অনুশীলন করার পর্যাপ্ত সময় পাইনি। জানি, এ বারে অনেক বাধা আসতে পারে। কিন্তু আমরা নিজেদের উজাড় করে দিতে তৈরি। এ বার ইডেনে আমরা খেলতে পারব না। তবুও আশা করি, ভক্তরা আমাদের পাশে থাকবেন।'<br />
&nbsp;</p>

সমর্থকদের উদ্দেশে কেকেআর অধিনায়কের বার্তা,'তবে এটা বুঝতে পারি, আমরা ভাল খেললে আপনাদের মুখে হাসি ফোটে। অনুশীলন করার পর্যাপ্ত সময় পাইনি। জানি, এ বারে অনেক বাধা আসতে পারে। কিন্তু আমরা নিজেদের উজাড় করে দিতে তৈরি। এ বার ইডেনে আমরা খেলতে পারব না। তবুও আশা করি, ভক্তরা আমাদের পাশে থাকবেন।'
 

<p>কেকেআরের বোলিং অ্যাটেকের অন্যতম সেরা অস্ত্র চায়নাম্যান কুলদীপ যাদব। তিনি জানিয়েছেন,'লকডাউনের শুরুতে সত্যি সমস্যা হয়েছে। বাইরে অনুশীলন করতে যেতে পারিনি। তবুও এখন আমি তৈরি। সাত দিন পরে যদি ম্যাচ খেলতে বলা হয়, তাতেও আমি রাজি। মাঠে ফেরার তর সইছে না।'<br />
&nbsp;</p>

কেকেআরের বোলিং অ্যাটেকের অন্যতম সেরা অস্ত্র চায়নাম্যান কুলদীপ যাদব। তিনি জানিয়েছেন,'লকডাউনের শুরুতে সত্যি সমস্যা হয়েছে। বাইরে অনুশীলন করতে যেতে পারিনি। তবুও এখন আমি তৈরি। সাত দিন পরে যদি ম্যাচ খেলতে বলা হয়, তাতেও আমি রাজি। মাঠে ফেরার তর সইছে না।'
 

<p>এবছর দলে দায়িত্ব অনেক বেড়েছে তরুণ ব্যাটসম্যান শুভমান গিলের। তার উপর ভরসাও বেড়েছে ফ্যান ও ম্যানেজমেন্টের। তিনি জানাচ্ছেন,'শেষ পাঁচ মাস মানসিক ভাবে তৈরি হওয়া ছাড়া কিছুই করতে পারিনি। তবে এখন আমি খুবই উত্তেজিত। মাঠে ফিরে রান করার খিদে আরও বেড়ে গিয়েছে আমার।'<br />
&nbsp;</p>

এবছর দলে দায়িত্ব অনেক বেড়েছে তরুণ ব্যাটসম্যান শুভমান গিলের। তার উপর ভরসাও বেড়েছে ফ্যান ও ম্যানেজমেন্টের। তিনি জানাচ্ছেন,'শেষ পাঁচ মাস মানসিক ভাবে তৈরি হওয়া ছাড়া কিছুই করতে পারিনি। তবে এখন আমি খুবই উত্তেজিত। মাঠে ফিরে রান করার খিদে আরও বেড়ে গিয়েছে আমার।'
 

<p>বিদেশে খেলতে গিয়ে একটু অন্য মুডে রয়েছেন নাইটদের তরুণ পেসার কমলেশ নগরকোটি। ইতিমধ্যেই মার হাতের রান্নাও মিস করছেন বলে জানিয়েছেন তিনি। তবে নাইটদের হয়ে পারফর্ম করতে মরিয়া তরুণ তুর্কিও।&nbsp;দলের প্লেয়ারদের স্বাস্থ্য সংক্রান্ত নিরাপত্তা নিয়ে কোনওরকম ঝুঁকি নিতে নারাজ নাইট রাইডার্স কর্তৃপক্ষ। যাবতীয় নিয়ম মেনে চলার কথা বলা হয়েছে দলের তরফে। কেকেআর ডট ইনকে নাইট সিইও বেঙ্কি মাইসোর বলেছেন,'বোর্ডের স্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিওর মেনে নিভৃতবাস কাটানোর পরে অনুশীলনে নামবে ক্রিকেটারেরা।'</p>

বিদেশে খেলতে গিয়ে একটু অন্য মুডে রয়েছেন নাইটদের তরুণ পেসার কমলেশ নগরকোটি। ইতিমধ্যেই মার হাতের রান্নাও মিস করছেন বলে জানিয়েছেন তিনি। তবে নাইটদের হয়ে পারফর্ম করতে মরিয়া তরুণ তুর্কিও। দলের প্লেয়ারদের স্বাস্থ্য সংক্রান্ত নিরাপত্তা নিয়ে কোনওরকম ঝুঁকি নিতে নারাজ নাইট রাইডার্স কর্তৃপক্ষ। যাবতীয় নিয়ম মেনে চলার কথা বলা হয়েছে দলের তরফে। কেকেআর ডট ইনকে নাইট সিইও বেঙ্কি মাইসোর বলেছেন,'বোর্ডের স্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিওর মেনে নিভৃতবাস কাটানোর পরে অনুশীলনে নামবে ক্রিকেটারেরা।'

loader