মেছোভেড়ি নিয়ে তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর বিবাদ মেটাতে সালিশি সভা, পুলিশ-বিডিও সামনেই উত্তপ্ত পরিস্থিতি

First Published 17, Oct 2020, 9:17 PM

মেছো ভেড়ির দখল নিয়ে তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর মধ্য়ে বিবাদ। কার দখলে চুক্তি যাবে তার বিবাদ মেটাতে সালিশি সভা বসিয়েছিল পুলিশ ও বিডিও। সালিশি সভায় প্রশাসনের কর্তাদের সামনে তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর মধ্যে বাক বিতণ্ডা শুরু হয়। পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার আগে হাতাহাতিতে জড়ায় দুই পক্ষ। চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটেছে মুর্শিদাবাদের বিডিও অফিস চত্বরে। পরিস্থিতি এতটাই উত্তপ্ত হয় যে, রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় গোটা এলাকা। বিভিন্ন জায়গা থেকে ইট-বৃষ্টি শুরু হয়। এই অবস্থায় উত্তপ্ত পরিস্থিতি সামাল দিতে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় বিশাল পুলিশ বাহিনী।   

<p style="text-align: justify;">তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর বিবাদ মেটাতে গিয়ে তুলকালাম কাণ্ড ঘটে গেল মুর্শিদাবাদে। পুলিশ ও বিডিও-র সামনেই সংঘর্ষে জড়ালেন তৃণমূলের দুই পক্ষ। দফায় দফায় সংঘর্ষের জেরে উত্তেজনা ছড়ায়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে নামানো হয় র্যাফ।</p>

তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর বিবাদ মেটাতে গিয়ে তুলকালাম কাণ্ড ঘটে গেল মুর্শিদাবাদে। পুলিশ ও বিডিও-র সামনেই সংঘর্ষে জড়ালেন তৃণমূলের দুই পক্ষ। দফায় দফায় সংঘর্ষের জেরে উত্তেজনা ছড়ায়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে নামানো হয় র্যাফ।

<p style="text-align: justify;">চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটেছে মুর্শিদাবাদের ডোমকলে। জুরানপুর গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার একটি মেছোভেড়ি ঘিরে গন্ডগোলের সূত্রপাত। মেছোভেড়ির বরাত কার দখলে থাকবে? তৃণমূল পরিচালিত গ্রাম পঞ্চায়েত না পঞ্চায়েত সমিতির হাতে? তাই নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে গণ্ডগোল চলছিল দুই গোষ্ঠীর মধ্যে।&nbsp;</p>

চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটেছে মুর্শিদাবাদের ডোমকলে। জুরানপুর গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার একটি মেছোভেড়ি ঘিরে গন্ডগোলের সূত্রপাত। মেছোভেড়ির বরাত কার দখলে থাকবে? তৃণমূল পরিচালিত গ্রাম পঞ্চায়েত না পঞ্চায়েত সমিতির হাতে? তাই নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে গণ্ডগোল চলছিল দুই গোষ্ঠীর মধ্যে। 

<p style="text-align: justify;">বিষয়টি সম্পর্কে অবগত ছিলেন ডোমকল থানার ওসি ও বিডিও। মেছো ভেড়ি নিয়ে তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর বিবাদ মেটাতে সালিশি সভার আয়োজন করা হয় প্রশাসনের তরফে। বিডিও অফিস চত্বরে সালিশি সভায় বসে তৃণমূলের দুই গোষ্ঠী। উপস্থিত ছিলেন থানার ওসি শৈলেন বিশ্বাস ও ব্লক উন্নয়ন আধিকারিক।&nbsp;</p>

বিষয়টি সম্পর্কে অবগত ছিলেন ডোমকল থানার ওসি ও বিডিও। মেছো ভেড়ি নিয়ে তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর বিবাদ মেটাতে সালিশি সভার আয়োজন করা হয় প্রশাসনের তরফে। বিডিও অফিস চত্বরে সালিশি সভায় বসে তৃণমূলের দুই গোষ্ঠী। উপস্থিত ছিলেন থানার ওসি শৈলেন বিশ্বাস ও ব্লক উন্নয়ন আধিকারিক। 

<p style="text-align: justify;">সালিশি সভায় শুরু হতেই বাক বিতণ্ডায় জড়ায় দুই পক্ষ। কোনও কিছু বুঝে ওঠার আগেই তাঁদের মধ্যে হাতাহাতি শুরু হয়ে যায়। শুধু তাই নয়, লাঠি নিয়ে একে অপরের মধ্যে মারামারি শুরু হয়ে যায়। বাইরে থেকে লোক এসে ইট-পাটকেল ছুঁড়তে থাকে বলে অভিযোগ। তৃণমূলের দুই পক্ষের সংঘর্ষের জেরে রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় গোটা বিডিও অফিস চত্বর।</p>

সালিশি সভায় শুরু হতেই বাক বিতণ্ডায় জড়ায় দুই পক্ষ। কোনও কিছু বুঝে ওঠার আগেই তাঁদের মধ্যে হাতাহাতি শুরু হয়ে যায়। শুধু তাই নয়, লাঠি নিয়ে একে অপরের মধ্যে মারামারি শুরু হয়ে যায়। বাইরে থেকে লোক এসে ইট-পাটকেল ছুঁড়তে থাকে বলে অভিযোগ। তৃণমূলের দুই পক্ষের সংঘর্ষের জেরে রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় গোটা বিডিও অফিস চত্বর।

<p style="text-align: justify;"><br />
থানার ওসির সামনেই সংঘর্ষ শুরু হতেই ঘটনার কিছুক্ষণের মধ্যে পৌঁছায় ডোমকল থানার বিশাল পুলিশ বাহিনী। পুলিশ পৌঁছে বিবাদমান দুই পক্ষকে দূরে সরিয়ে দেয়। সংঘর্ষের জেরে আহত হন দুই পক্ষের বেশ কয়েকজন। যদিও ঘটনা নিয়ে প্রকাশ্যে কেউ কিছু মন্তব্য করতে চাইনি।</p>


থানার ওসির সামনেই সংঘর্ষ শুরু হতেই ঘটনার কিছুক্ষণের মধ্যে পৌঁছায় ডোমকল থানার বিশাল পুলিশ বাহিনী। পুলিশ পৌঁছে বিবাদমান দুই পক্ষকে দূরে সরিয়ে দেয়। সংঘর্ষের জেরে আহত হন দুই পক্ষের বেশ কয়েকজন। যদিও ঘটনা নিয়ে প্রকাশ্যে কেউ কিছু মন্তব্য করতে চাইনি।

loader