অসুস্থ বাবা শয্যাশায়ী, সংসারের হাল ধরেছেন কলেজ পড়ুয়া মেয়ে

First Published 26, Apr 2020, 3:37 PM

বাবার হাত ভেঙেছে। কিন্তু তাতে কি! লকডাউনের বাজারে সংসারের হাল ধরেছেন কলেজ পড়ুয়া মেয়েই। কাকভোরে সাইকেল নিয়ে বেরিয়ে পড়েন ওই তরুণী। কাগজ এনে পৌঁছে দেন পাঠকদের বাড়িতে। কাজ সারতে সময় লেগে যায় প্রায় ঘণ্টা দুয়েক। বাড়ি ফিরেও আর বিশ্রাম নয়, অনলাইনে শুরু হয়ে যায় পড়াশোনা। এভাবেই দিন কাটছে রিষড়ার সুনেত্রা দত্তের। কঠিন লড়াইয়ে অবশ্য় মা-কেও পাশে পেয়েছেন তিনি।

<p> রিষড়ার মোড়পুকুর বকুলতলা এলাকায় থাকেন শৈবাল দত্ত। পেশায় তিনি খবরে কাগজের হকার। স্ত্রী ও একমাত্র মেয়েকে নিয়ে সংসার। </p>

 রিষড়ার মোড়পুকুর বকুলতলা এলাকায় থাকেন শৈবাল দত্ত। পেশায় তিনি খবরে কাগজের হকার। স্ত্রী ও একমাত্র মেয়েকে নিয়ে সংসার। 

<p>তখনও লকডাউন শুরু হয়নি। মাস খানেক আগে বাথরুমে পড়ে দিয়ে হাত ভেঙে যায় শৈবালের। অস্ত্রোপচার করতে হয়।  ফলে লোকের বাড়ি বাড়ি গিয়ে আর খবরের কাগজ দিতে পারেন না।    </p>

তখনও লকডাউন শুরু হয়নি। মাস খানেক আগে বাথরুমে পড়ে দিয়ে হাত ভেঙে যায় শৈবালের। অস্ত্রোপচার করতে হয়।  ফলে লোকের বাড়ি বাড়ি গিয়ে আর খবরের কাগজ দিতে পারেন না।    

<p>একমাত্র মেয়ে সুনেত্রা পলিটেকনিক কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্রী। সংসারের দায়িত্ব কাঁধে তুলে নিয়েছেন তিনি। </p>

একমাত্র মেয়ে সুনেত্রা পলিটেকনিক কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্রী। সংসারের দায়িত্ব কাঁধে তুলে নিয়েছেন তিনি। 

<p>পড়াশোনার ফাঁকে চলছে কাগজ বিক্রিও। রোজ কাকভোরে সাইকেল নিয়ে বেরিয়ে পড়েন সুনেত্রা। জিটি রোড থেকে কাগজ এনে পৌঁছে দেন পাঠকদের বাড়িতে।</p>

পড়াশোনার ফাঁকে চলছে কাগজ বিক্রিও। রোজ কাকভোরে সাইকেল নিয়ে বেরিয়ে পড়েন সুনেত্রা। জিটি রোড থেকে কাগজ এনে পৌঁছে দেন পাঠকদের বাড়িতে।

<p>মেয়েকে সাহায্য করেন শৈবালের স্ত্রীও। একজন হেঁটে, আর এক সাইকেল নিয়ে। রোজ সকালে কাগজ নিয়ে দু'দিকে চলে যান তাঁরা।</p>

মেয়েকে সাহায্য করেন শৈবালের স্ত্রীও। একজন হেঁটে, আর এক সাইকেল নিয়ে। রোজ সকালে কাগজ নিয়ে দু'দিকে চলে যান তাঁরা।

loader