ফেসবুকে প্রেম করে বিয়ে, মাস খানেক সংসারের পর বিতাড়িত, স্বামীর দাবিতে ধর্ণায় বসল গৃহবধূ

First Published 10, Nov 2020, 4:51 PM

কলেজে পড়াশুনার সময় ফেসবুকে এক যুবকের সঙ্গে প্রেম করে বিয়ে। তারপর শ্বশুর বাড়িতে মাস খানেক সংসার করার পর পণের দাবিতে ঘর থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ। বিয়ের এক বছর পর গ্রামবাসীরা চাঁদা তুলে তাঁর শ্বশুরবাড়িকে ৫০ হাজার টাকা দিয়েছিল বলে দাবি গৃহবধূর। তারপরেও পণের দাবিতে ওই নববধূকে চাপ দিতে থাকে বলে অভিযোগ। পরিবারের চাপের মুখে ঘরছাড়া স্বামীও। ঘটনাটি ঘটেছে মালদহের কালিয়াচকের সুজাপুরের বামুন গ্রামে। এই অবস্থায় স্বামীকে ফিরে পেতে শ্বশুর বাড়ির সামনে ধর্ণায় বসলেন গৃহবধূ।

<p style="text-align: justify;">কলেজে পড়ার সময় ফেসবুকে পরিচয়। সেখান থেকে সম্পর্ক গড়ায় ভালবাসায়। তিন বছর প্রেম করার পর মুসলিম মতে রেজিস্ট্রি বিয়ে করেছিল সাবিনা খাতুন। কিন্তু বিয়ের পর মাস খানেক সংসার করার পরই পণের দাবিতে তাঁকে ঘর থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ।</p>

কলেজে পড়ার সময় ফেসবুকে পরিচয়। সেখান থেকে সম্পর্ক গড়ায় ভালবাসায়। তিন বছর প্রেম করার পর মুসলিম মতে রেজিস্ট্রি বিয়ে করেছিল সাবিনা খাতুন। কিন্তু বিয়ের পর মাস খানেক সংসার করার পরই পণের দাবিতে তাঁকে ঘর থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ।

<p style="text-align: justify;">মালদহের কালিয়াচক এক নম্বর ব্লকের সুজাপুরের বাসিন্দা সাবিনা খাতুন তাঁর স্বামীকে ফিরে পেতে শ্বশুর বাড়ির সামনে ধরনায় বসলেন গৃহবধূ। মালদহের দৌলতপুরে শ্বশুর বাড়ির সামনে ধর্নায় বসে থাকতে দেখে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে এলাকায়।</p>

মালদহের কালিয়াচক এক নম্বর ব্লকের সুজাপুরের বাসিন্দা সাবিনা খাতুন তাঁর স্বামীকে ফিরে পেতে শ্বশুর বাড়ির সামনে ধরনায় বসলেন গৃহবধূ। মালদহের দৌলতপুরে শ্বশুর বাড়ির সামনে ধর্নায় বসে থাকতে দেখে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে এলাকায়।

<p style="text-align: justify;">গৃহবধূর অভিযোগ, প্রেম করে বিয়ে করার পর থেকে শ্বশুর বাড়ি থেকে পণের জন্য চাপ দিতে থাকে বলে অভিযোগ। বিয়ের এক বছর পর গ্রামবাসীরা চাঁদা তুলে শ্বশুর বাড়িতে ৫০ হাজার টাকা দিয়েছিল। কিন্তু তাতেও মানেনি স্বামীর পরিবার।</p>

গৃহবধূর অভিযোগ, প্রেম করে বিয়ে করার পর থেকে শ্বশুর বাড়ি থেকে পণের জন্য চাপ দিতে থাকে বলে অভিযোগ। বিয়ের এক বছর পর গ্রামবাসীরা চাঁদা তুলে শ্বশুর বাড়িতে ৫০ হাজার টাকা দিয়েছিল। কিন্তু তাতেও মানেনি স্বামীর পরিবার।

<p style="text-align: justify;">আরও অভিযোগ, বাইক ও পণের দাবিতে নাসিরউদ্দিন তাঁর উপর মারধর করত বলে অভিযোগ। পরে ঘর থেকে বের করে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ। স্বামী প্রথমে স্ত্রীকে ঘরে ফেরাতে চাইলেও, পরিবারের চাপে সে হাল ছেড়ে দেয় বলে দাবি ওই গৃহবধূর।</p>

আরও অভিযোগ, বাইক ও পণের দাবিতে নাসিরউদ্দিন তাঁর উপর মারধর করত বলে অভিযোগ। পরে ঘর থেকে বের করে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ। স্বামী প্রথমে স্ত্রীকে ঘরে ফেরাতে চাইলেও, পরিবারের চাপে সে হাল ছেড়ে দেয় বলে দাবি ওই গৃহবধূর।

<p style="text-align: justify;">গৃহবধূর দাবি, ভালবেসেই বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল স্বামী নাসির উদ্দিন মিঞা। তিনি এখন বিহারের পূর্ণিয়ায় একটি নার্সিংহোমে কাজ করেন। তাঁর স্বামীর সঙ্গে অন্য এক মেয়ের প্রেমের সম্পর্ক হয় বলে দাবি সাবিনা খাতুনের।</p>

গৃহবধূর দাবি, ভালবেসেই বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল স্বামী নাসির উদ্দিন মিঞা। তিনি এখন বিহারের পূর্ণিয়ায় একটি নার্সিংহোমে কাজ করেন। তাঁর স্বামীর সঙ্গে অন্য এক মেয়ের প্রেমের সম্পর্ক হয় বলে দাবি সাবিনা খাতুনের।

<p style="text-align: justify;"><br />
সোমবার থেকে স্বামীর বাড়ি দৌলতপুর এলাকায় ঘুরে বেড়িয়েছে সাবিনা খাতুন। রাত দশটার পর কাকা শ্বশুরের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছিলেন। স্বামীকে ফিরে পেতে শ্বশুর বাড়ির সামনে ধর্নায় বসেছে গৃহবধূ।</p>


সোমবার থেকে স্বামীর বাড়ি দৌলতপুর এলাকায় ঘুরে বেড়িয়েছে সাবিনা খাতুন। রাত দশটার পর কাকা শ্বশুরের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছিলেন। স্বামীকে ফিরে পেতে শ্বশুর বাড়ির সামনে ধর্নায় বসেছে গৃহবধূ।

<p>বিয়ের পর থেকে তাঁর শাশুড়ি অতিরিক্ত পণের জন্য চাপ দিতে থাকে বলে অভিযোগ। শুধু তাই নয়, শাশুড়ি তাঁর গলায় ওড়না দিয়ে তাঁকে খুনের চেষ্টা করে বলে অভিযোগ।</p>

বিয়ের পর থেকে তাঁর শাশুড়ি অতিরিক্ত পণের জন্য চাপ দিতে থাকে বলে অভিযোগ। শুধু তাই নয়, শাশুড়ি তাঁর গলায় ওড়না দিয়ে তাঁকে খুনের চেষ্টা করে বলে অভিযোগ।