বসতবাড়ি গিলে ফেলছে ভাগিরথী, নদী ভাঙনের আতঙ্ক নদিয়ায়

First Published 27, Sep 2020, 7:12 PM

ভাগীরথীর ভাঙন অব্যাহত নদিয়ায়। দিনে দিনে নদী গর্ভে তলিয়ে যাচ্ছে গোটা গ্রাম। চাষজমি, বাড়িঘর সবই গিলেছে ভাগীরথী নদী। ভাঙনের জেরে বাড়ির দেওয়াল ঘেঁসেছে নদীর পাড়। আতঙ্ক ছড়াচ্ছে নদিয়ার নবদ্বীপ থানার মহিশুরা গ্রাম পঞ্চায়েত। লকডাউন আগেই কর্মহীন করেছে। কিন্তু নদী ভাঙন কেড়ে নিয়েছে রাতের ঘুম।    

<p>দিনে দিনে গোটা গ্রামটাই গিলে নিচ্ছে নদী। ভাঙনের জেরে চাষজমি ঢুকেছে নদী গর্ভে। করোনা আবহে নতুন আতঙ্ক নদীয়ার নবদ্বীপে।</p>

দিনে দিনে গোটা গ্রামটাই গিলে নিচ্ছে নদী। ভাঙনের জেরে চাষজমি ঢুকেছে নদী গর্ভে। করোনা আবহে নতুন আতঙ্ক নদীয়ার নবদ্বীপে।

<p>এলাকার বেশ কয়েকটি গ্রামের পাশ দিয়ে বয়ে গিয়েছে ভাগিরথী নদী। নদী ভাঙনে জেরে চলে গিয়েছে প্রায় কয়েকশো বিঘা জমি।</p>

এলাকার বেশ কয়েকটি গ্রামের পাশ দিয়ে বয়ে গিয়েছে ভাগিরথী নদী। নদী ভাঙনে জেরে চলে গিয়েছে প্রায় কয়েকশো বিঘা জমি।

<p>নবদ্বীপ থানার মহীশুরা গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রায় তিন থেকে চারটি গ্রামে এভাবেই আতঙ্কে রয়েছে। এই বুঝি ঘর ঢুকে পড়ল নদী গর্ভে।</p>

নবদ্বীপ থানার মহীশুরা গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রায় তিন থেকে চারটি গ্রামে এভাবেই আতঙ্কে রয়েছে। এই বুঝি ঘর ঢুকে পড়ল নদী গর্ভে।

<p>বছরখানেক আগে ভাঙন প্রতিরোধের জন্য বালি বস্তা ফেলা হয়েছিল। বালির বস্তা, পাথর, বাঁশের খাঁচা বেঁধেছিল প্রশাসন। কিন্তু সবই এখন নদী গর্ভে।</p>

বছরখানেক আগে ভাঙন প্রতিরোধের জন্য বালি বস্তা ফেলা হয়েছিল। বালির বস্তা, পাথর, বাঁশের খাঁচা বেঁধেছিল প্রশাসন। কিন্তু সবই এখন নদী গর্ভে।

<p>মহীশুরা গ্রাম পঞ্চায়েতের গ্রাম পঞ্চায়েতের মালিতাপাড়া, কুর্মিপাড়া, চৌধুরীপাড়া। সহ আরও কয়েকটি গ্রামের বাসিন্দারা ভাঙনের আতঙ্কে ভুগছেন।</p>

মহীশুরা গ্রাম পঞ্চায়েতের গ্রাম পঞ্চায়েতের মালিতাপাড়া, কুর্মিপাড়া, চৌধুরীপাড়া। সহ আরও কয়েকটি গ্রামের বাসিন্দারা ভাঙনের আতঙ্কে ভুগছেন।

<p>ভাগিরথী নদীর পাড় থেকে অবাধে মাটি মাটি পাচারের দৌরাত্ম্য বেড়েছে বলে অভিযোগ। তার জেরে নদী ভাঙন বাড়ছে বলে দাবি গ্রামবাসীদের।</p>

ভাগিরথী নদীর পাড় থেকে অবাধে মাটি মাটি পাচারের দৌরাত্ম্য বেড়েছে বলে অভিযোগ। তার জেরে নদী ভাঙন বাড়ছে বলে দাবি গ্রামবাসীদের।

loader