বরফ পড়েছে পুরুলিয়ায়, দাবি বেগুনকোদরের বাসিন্দাদের, রইল ছবি

First Published 29, Dec 2019, 12:15 AM IST

  • পুরুলিয়ার বেগুনকোদরে তুষারপাতের দাবি
  • শনিবার সকালে বরফ কুচির আস্তরণে ঢাকে গ্রাম
  • গ্রামবাসীদের দাবি মানতে নারাজ বিশেষজ্ঞরা 
পুরুলিয়ায় নাকি তুষারপাত। এমনই দাবি করে বেশ কিছু ছবি ভাইরাল হলো সোশ্যাল মিডিয়ায়। পুরুলিয়ার বেগুনকোদরের গ্রামবাসীদের দাবি, শনিবার সকালে তাঁদের এলাকায় বরফ পড়েছে। ভাইরাল এই ছবিগুলির সত্যতা যাচাই করেনি এশিয়ানেট নিউজ বাংলা।

পুরুলিয়ায় নাকি তুষারপাত। এমনই দাবি করে বেশ কিছু ছবি ভাইরাল হলো সোশ্যাল মিডিয়ায়। পুরুলিয়ার বেগুনকোদরের গ্রামবাসীদের দাবি, শনিবার সকালে তাঁদের এলাকায় বরফ পড়েছে। ভাইরাল এই ছবিগুলির সত্যতা যাচাই করেনি এশিয়ানেট নিউজ বাংলা।

নিজেদের দাবির স্বপক্ষে বেশ কয়েকটি ছবি দেখিয়েছেন গ্রামবাসীরা। তাতে দেখা যাচ্ছে গ্রামের মধ্যে খড়ের গাদায় এবং রাস্তায় বরফের কুচির মতোই সাদা আস্তরণ তৈরি হয়েছে। বরফ পড়ার খবর ছড়িয়ে পড়তেই গ্রামবাসীরা প্রবল ঠান্ডা উপেক্ষা করেই বাইরে বেরিয়ে আসেন।

নিজেদের দাবির স্বপক্ষে বেশ কয়েকটি ছবি দেখিয়েছেন গ্রামবাসীরা। তাতে দেখা যাচ্ছে গ্রামের মধ্যে খড়ের গাদায় এবং রাস্তায় বরফের কুচির মতোই সাদা আস্তরণ তৈরি হয়েছে। বরফ পড়ার খবর ছড়িয়ে পড়তেই গ্রামবাসীরা প্রবল ঠান্ডা উপেক্ষা করেই বাইরে বেরিয়ে আসেন।

গ্রামের প্রবীণ নাগরিকরা জানাচ্ছেন, এর আগে কোনওদিনই তাঁদের এলাকায় বরফ পড়েছেন বলে শোনেননি। গ্রামবাসীদের কয়েকজনের ধারণা, প্রবল ঠান্ডায় শিশির বিন্দুগুলি জমে গিয়ে বরফের আকার নিয়েছে। অনেকেই সেই ছবি তুলে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেন। যা পুরুলিয়ায় তুষারপাতের ছবি বলে ভাইরাল হয়। এ দিন পুরুলিয়ার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল সাত ডিগ্রি সেলসিয়াস। ফলে প্রবল ঠান্ডা থাকলেও বরফ পড়ার দাবি মানতে নারাজ বিশেষজ্ঞরা। কারণ বরফ পড়ার প্রধান শর্তই হল তাপমাত্রা হিমাঙ্ক বা তার নীচে চলে যাওয়া।

গ্রামের প্রবীণ নাগরিকরা জানাচ্ছেন, এর আগে কোনওদিনই তাঁদের এলাকায় বরফ পড়েছেন বলে শোনেননি। গ্রামবাসীদের কয়েকজনের ধারণা, প্রবল ঠান্ডায় শিশির বিন্দুগুলি জমে গিয়ে বরফের আকার নিয়েছে। অনেকেই সেই ছবি তুলে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেন। যা পুরুলিয়ায় তুষারপাতের ছবি বলে ভাইরাল হয়। এ দিন পুরুলিয়ার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল সাত ডিগ্রি সেলসিয়াস। ফলে প্রবল ঠান্ডা থাকলেও বরফ পড়ার দাবি মানতে নারাজ বিশেষজ্ঞরা। কারণ বরফ পড়ার প্রধান শর্তই হল তাপমাত্রা হিমাঙ্ক বা তার নীচে চলে যাওয়া।

তবে পরিস্থিতি যেদিকে এগোচ্ছে তাতে পুরুলিয়ায় না হলেও দার্জিলিঙে বরফ পড়ার আশা করতেই পারেন সেখানকার পর্যটকরা। কারণ এ দিন দার্জিলিঙের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা নেমে গিয়েছিল ১.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসে।

তবে পরিস্থিতি যেদিকে এগোচ্ছে তাতে পুরুলিয়ায় না হলেও দার্জিলিঙে বরফ পড়ার আশা করতেই পারেন সেখানকার পর্যটকরা। কারণ এ দিন দার্জিলিঙের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা নেমে গিয়েছিল ১.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসে।

শীতের প্রবল দাপটে কাঁপছে গোটা বাংলা। উত্তর থেকে দক্ষিণবঙ্গ, অধিকাংশ জেলাতেই রবিবারও শৈত্যপ্রবাহের সতর্কবার্তা জারি থাকছে। উত্তরবঙ্গের পরেই শীতের কামড় সবথেকে বেশি পশ্চিমাঞ্চলের জেলাগুলিতে।

শীতের প্রবল দাপটে কাঁপছে গোটা বাংলা। উত্তর থেকে দক্ষিণবঙ্গ, অধিকাংশ জেলাতেই রবিবারও শৈত্যপ্রবাহের সতর্কবার্তা জারি থাকছে। উত্তরবঙ্গের পরেই শীতের কামড় সবথেকে বেশি পশ্চিমাঞ্চলের জেলাগুলিতে।

loader