করোনাভাইরাস সংক্রমণ থেকে বাঁচতে অন্যতম হাতিয়ার বার বার হাত ধোয়া বা স্যানিটাইজ করা, মাস্ক পরা ও সামাজিক দূরত্ব মেনে চলা। তাই বর্তমান সময়ে, ঘন ঘন হাতে স্যানিটাইজার ব্যবহার করা অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ একটি পরিবর্তন। স্যানিটাইজারের অতিরিক্ত ব্যবহারের ফলে ত্বকে ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে। তবে স্যানিটাইজার ত্বকের ক্ষতি করলেও এই মহামারী আবহে এটি সুরক্ষার অন্যতম অস্ত্র। তাই স্যানিটাইজার ব্যবহারের ক্ষেত্রে এই বিষয়গুলি জেনে রাখা প্রয়োজন। বাজারে পাওয়া সাধারণ হ্যান্ড স্যানিটাইজারগুলিতে উচ্চ মাত্রায় ইথাইল অ্যালকোহল এবং আইসোপ্রোপাইল অ্যালকোহল এছাড়া এতে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল উপাদান ট্রাইক্লোসানও থাকে। এই তিনটি উপাদন ভাইরাসকে হত্যা করতে কার্যকর। তবে এটি পাশাপাশি ত্বকেও বিরূপ প্রভাব ফেলতে পারে। 

আরও পড়ুন-  করোনার সেকেন্ড ওয়েভ ভয়াল রূপ নিচ্ছে, হোম আইসোলেশনে এই নিয়মগুলি মানার পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের 

তবে ত্বকে স্যানিটাইজার ব্যবহারের প্রভাব নিয়ে বিশেষজ্ঞদের ভিন্ন ভিন্ন মতামত রয়েছে। তাই কি উপায়ে স্যানিটাইজার ব্যবহার করলে ত্বক ক্ষতিগ্রস্থ হবে না তা জেনে রাখা প্রয়োজন। একটানা অতিরিক্ত স্যানিটাইজার ব্যবহারের ফলে এটি নখের চারপাশের ত্বকে ফোলাভাব এবং জ্বালা সৃষ্টি করতে পারে। এছাড়া ত্বকের রঙ পরিবর্তন করতে পারে যার কারণে হাত নোংরা এবং খারাপ দেখাতে লাগে। বাজার চলতি হ্যান্ড স্যানিটাইজারগুলি ঘন ঘন ব্যবহারের ফলে ত্বক প্রায়শই শুকিয়ে যায়। এ ছাড়া ত্বকে লালচেভাব দেখা দেয় এবং একজিমার সমস্যাও দেখা
দিতে পারে। অনেক সময় একটানা  হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ব্যবহারের ফলে ত্বকের জ্বালা এবং তীব্র চুলকানিও হতে পারে। 

আরও পড়ুন-  সংক্রমণ ঠেকাতে কি দুটি মাস্ক পরা উচিত, জেনে নিন এই বিষয়ে কি বলেছে সিডিসি 

গবেষণা অনুসারে, যদি ২০ সেকেন্ড বা তার বেশি সময় ধরে সাবান এবং জল দিয়ে আপনার হাত ধুতে পারেন, তবে এটি হাত স্যানিটাইজিংয়ের মতোই কার্যকর। সুতরাং, যখন আপনার কাছে জল এবং সাবান থাকবে,সেই সময় স্যানিটাইজ ব্যবহার করা এড়ানো উচিত। এছাড়া হাতকে ময়েশ্চারাইজ রাখতে সানস্ক্রিন ব্যবহার করতে পারেন। এর ফলে আপনার ত্বক ক্ষতি হওয়ার থেকে কিছুটা রক্ষা পাবে। সানস্ক্রিনের বদলে ভালো গ্লিসারিন বেসড ময়েশ্চারাইজারও ব্যবহার করতে পারেন। যদি অ্যালকোহল বেসড স্যানিটাইজার ব্যবহার করেন, তবে হাত স্যানিটাইজ করার পর শুকিয়ে গেলে ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করতে পারেন। এর ফলে ত্বক কম ক্ষতিগ্রস্থ হয়।