করোনার সংক্রমণের তথ্য নিরীক্ষণ করা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডমিটারের মতে, বিশ্বজুড়ে এক কোটি ৬৬ লক্ষেরও বেশি সংক্রমণের ঘটনা ঘটেছে। আর তার মধ্যে মৃত্যুর সংখ্যা সাড়ে ছয় লক্ষ ছাড়িয়ে গিয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে দেশ জুড়ে প্রতিদিন ৪৫ থেকে ৪৮ হাজার মানুষ আক্রান্ত হচ্ছেন। এমন সঙ্কটজনক পরিস্থিতিতে এই মহামারিতে কিছুটা স্বস্তি দিয়ে দেশে শুরু হচ্ছে অক্সফোর্ড-এর বিজ্ঞানীদের তৈরি করোনা টিকার চূড়ান্ত পর্বের হিউম্যান ট্রায়াল।

ব্রিটিশ বিজ্ঞান বিষয়ক পত্রিকা 'দ্যি ল্যানসেট'-এ প্রকাশিত হয়েছিল, অক্সফোর্ড-এর বিজ্ঞানীদের তৈরি করোনা টিকার প্রথম পর্যায়ের হিউম্যান ট্রায়ালের ফলাফল। এই পর্যায়ে ১০৭০ জন স্বেচ্ছাসেবক-এর উপর এই টিকা প্রয়োগ করা হয়েছিল।  ল্যানসেট-এ প্রকাশিত এই ট্রায়ালের ফলাফল অনুযায়ী, ৯০ শতাংশ স্বেচ্ছাসেবক-এর শরীরেই করোনা-রোধী শক্তিশালী অ্যান্টিবডি এবং টি-সেল তৈরি করতে সক্ষম হয়েছে এই টিকা। অক্সফোর্ড-এর বিজ্ঞানীদের তৈরি যে টিকা সিরাম ইনস্টিটিউট তৈরি করছে তার নাম কোভিশিল্ড। কেন্দ্রীয় নিয়ন্ত্রক সংস্থা ড্রাগ কন্ট্রোলার জেনারেল অব ইন্ডিয়া দেশে এই টিকার চূড়ান্ত পর্বের হিউম্যান ট্রায়াল এর অনুমতি দিয়েছে।

কেন্দ্রের বায়োটেকনোলজি বিভাগের সচিব রেণু স্বরূপ পিটিআই-কে জানিয়েছেন, দেশের ৫টি বড় স্বাস্থ্যকেন্দ্রে করা হবে এই চূড়ান্ত পর্বের হিউম্যান ট্রায়াল। মোট ১,০০০ জন স্বেচ্ছাসেবকের শরীরে পরীক্ষামূলক প্রয়োগ করা হবে এই প্রতিষেধক। অন্যদিকে বিশ্বের বৃহত্তম ভ্যাকসিন প্রস্তুতকারী সিরাম ইনস্টিটিউট অফ ইন্ডিয়া এই টিকা তৈরির জন্য অক্সফোর্ড এবং তার সহযোগী সংস্থা অ্যাস্ট্রাজেনেকা-কে বেছে নিয়েছে। সিরাম ইনস্টিটিউটের সিইও আদর পুনাওয়ালা জানান, চলতি বছরেই কোভিশিল্ড- এর প্রায় ৪০ কোটি ডোজ তৈরি করবে সিরাম ইনস্টিটিউট।