একজনের থেকে ২৯ জনের দেহে ছড়িয়ে পড়েছে করোনার সংক্রমণ। এমনই অভিযোগ উঠেছে হাওড়ার এরক নাপিতের বিরুদ্ধে। এলাকাবাসীর অভিযোগ, পরিযায়ী শ্রমিকদের চুল ,দাড়ি কাটতে গিয়েই এই ঘটনা ঘটেছে। কিন্তু নিজে সংক্রমিত জেনেও কাজ চালিয়ে দেদার  ঘুরে বেড়িয়েছে ওই নাপিত। যার ফল হয়েছে ভয়ঙ্কর।

আমতা মেলাইবাড়ির স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, নাপিতপাড়ায় গত দু-একদিনে মোট ২৯ জনের দেহে করোনার সংক্রমণ পাওয়া গিয়েছে। যা নিয়ে নিজেরাই খোঁজ খবর চালান তারা। পরে জানতে পারেন, স্থানীয় এক নাপিত পরিযায়ী শ্রমিকদের চুল-দাড়ি কাটতে গিয়েই প্রথম সংক্রমিত হন। তার থেকেই পরবর্তীকালে চারিদেক ছড়িয়েছে করোনার ভাইরাস। এই সংক্রমণ। 

উপসর্গহীন হওয়ায় ওই নাপিতকে হোম কোয়ারেন্টাইেন থাকতে বলা হয়েছিল। কিন্তু না করে কাজের সঙ্গে চারিদিকে ঘুরে বেড়ান তিনি। যার জেরে এক পাড়ায় ২৯জন আক্রান্ত।  এদিকে, গতকাল একদিনে রেকর্ড সংখ্য়ক করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দেখা য়ায় রাজ্য়ে। শনিবার স্বাস্থ্য় দফতরের বুলেটিন বলছে, গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্য়ে করোনা পজিটিভ পেসেন্টের সংখ্যা ছুঁয়েছে  ৭৪৩ জন৷ এর মধ্য়ে মৃত্যু হয়েছে ১৯ জনের৷ এদিন সব মিলিয়ে সুস্থ হয়েছেন ৫৯৫ জন। পরিসংখ্য়ান বলছে, রাজ্য়ে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২১ হাজার ২৩১ জন৷

২৪ ঘন্টায় হাসপাতাল থেকে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৫৯৫ জন৷ সব মিলিয়ে রাজ্য়ে এই পর্যন্ত সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১৪,১৬৬ জন৷ যে ১৯ জনের মৃত্যু হয়েছে, এদের মধ্যে কলকাতারই ৮ জন৷ বাংলায় নতুন করে টেস্ট হয়েছে ১১০১৮টি৷ তবেএই পর্যন্ত মোট টেস্ট হয়েছে ৫ লক্ষ ৩০ হাজার ৭২ জনের৷ প্রতি মিলিয়নে টেস্ট ৫৮৯০ জন৷ যা শতাংশের হিসেবে ৪.০১ শতাংশ৷ এই মুহূর্তে সরকারি এবং বেসরকারি মিলিয়ে রাজ্যে ৫১টি ল্যাবরেটরিতে করোনা টেস্ট হচ্ছে৷ আরও ১টি ল্যাবরেটরি অপেক্ষায় রয়েছে৷

রাজ্য়ের সাম্প্রতিক ঘটনাবলী জানাচ্ছে, ইতিমধ্য়েই করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন বিজেপি নেত্রী লকেট চট্টোপাধ্যায়। জ্বরে কাবু হয়েছে বিজেপির অনেক নেতা নেত্রী। সেই কারণে র্য়ালি বন্ধ রাখার কথা বলেছেন বিজেপির রাজ্য় সভাপতি দিলীপ ঘোষ। বাস্তবে দেখা গেল বিজেপির রাজ্য় নেতৃত্বের সেই আশঙ্কাই সত্য়ি হল। তবে শুধু বিজেপি নয়। ইতিমধ্য়েই করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছেন তৃণমূল বিধায়ক তমোনাশ ঘোষ। করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন দমকল মন্ত্রী সুজিত বসু। তবে সুস্থ হয়ে বাড়ির মুখ দেখেছেন সুজিত।