অমিত শাহ আগেই দাবি করেছিলেন। এবার একই কথা শোনা গেল বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের মুখেও। মেদিনীপুরের সাংসদও দাবি করলেন, ভোটার কার্ড এবং আধার কার্ড নাগরিকত্বের প্রমাণ নয়। নাগরিকত্ব পেতে গেলে শরণার্থীদের আবেদন করতেই হবে। 

এ দিন নাগরিকত্ব আইনের সমর্থনে হাওড়ায় মিছিল করেন দিলীপ ঘোষ। এর পর সভা করেন তিনি। সেই সভা থেকেই ভোটার এবং আধার কার্ড নিয়ে এই বিতর্কিত মন্তব্য করেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি। তবে তিনি আশ্বস্ত করেছেন, বাংলাদেশ থেকে যে শরণার্থীরা এদেশে এসেছেন, নাগরিকত্ব নেওয়ার জন্য তাঁদের কোনও নথি দেখাতে হবে না। শুধু কবে তাঁরা বাংলাদেশ থেকে এসে এ দেশে এসেছেন মৌখিকভাবে সেই তথ্য জানালেই হবে। 

আরও পড়ুন- বিক্ষোভকারীদের গুলি করে মারার নিদান দিয়ে এবার নিউইয়র্ক টাইমসের পাতায় 'উজ্জ্বল' দিলীপ

আরও পড়ুন- বাসে চড়েই যাত্রা, দলের মধ্যেও ব্যতিক্রমী বাংলার বিজেপি সাংসদ

দিলীপবাবু  এ দিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আক্রমণ করে বলেন, নাগরকিত্ব আইন নিয়ে মানুষকে ভুল বোঝাচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী। তাঁর কথা শুনলে মানুষকে পস্তাতে হবে বলেও কটাক্ষ করেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি। 

দিলীপবাবু বলেন, 'জিএসটি-র সময় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ব্যবসায়ীদের বলেছিলেন রেজিস্ট্রেশন না করাতে। তাঁর পরামর্শ শুনে যে ব্যবসায়ীরা তা করাননি, তাঁদের তিন মাস বাদে ফাইন দিয়ে সেই কাজ করতে হয়েছে। ফলে এখন মুখ্যমন্ত্রীর কথা শুনলে আপনাদেরও তার ফল ভুগতে হবে।' মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বার বারই বলেছেন, ভোটার কার্ড, আধার কার্ডের মতো পরিচয়পত্রের যে কোনও একটি থাকলেই তা নাগরিকত্বের প্রমাণ হিসেবে গণ্য হবে। 

এ দিনও নাগরিকত্ব আইন নিয়ে আক্রমণ শানাতে গিয়ে ফের বেলাগাম মন্তব্য করেছেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি। তিনি বলেন, 'যাঁদের একটাই বাবা- মা, তাঁরা এই আইনে ভয় পাচ্ছেন না। কিন্তু যাঁদের অনেকগুলো বাবা- মা তাঁরাই নতুন আইনকে ভয় পাচ্ছেন।