মাধ্যমিক পরীক্ষার মাঝেই মাইক, এমনকী ডিজে বাজিয়ে চলল অনুষ্ঠান। হাওড়ায় মেলার উদ্বোধন করতে গিয়ে বিতর্কে জড়ালেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। ঘটনায় পুলিশের ভুমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

প্রতিবছর শিবরাত্রির আগে মেলা বসে হাওড়ার শ্যামপুরের অনন্তপুরে। কালীপুজোকে কেন্দ্র করে মেলা চলে দশদিন। এমনিতে এলাকায় যেকোনও উৎসব বা অনুষ্ঠানেই তারস্বরে মাইক বাজানো হয় বলে অভিযোগ। কিন্তু ভয়ে কেউ প্রতিবাদ করার সাহস পান না। মাধ্যমিক পরীক্ষার সময়েও সেই রীতিতে ছেদ পড়ল না! জানা গিয়েছে, বুধবার সন্ধ্যায় 'কালীমেলা' উদ্বোধন উপলক্ষ্যে অনন্তপুরের মিল মাঠে লাগানো হয় অজস্র মাইক। মেলা প্রাঙ্গনেও ছিল দশটি ডিজে বক্সও! এসবের মাঝেই প্রদীপ জ্বালিয়ে মেলার উদ্বোধন করেন খোদ রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। ভাষণও দেন তিনি। 

আরও পড়ুন: প্রশ্নপত্র ফাঁসের 'হ্যাটট্রিক', এবার পরীক্ষা শুরুর আগেই হোয়াটসঅ্যাপে মিলল ভূগোলের পেপার

জানা গিয়েছে, অনন্তপুরের যে এলাকায় মেলাটি হচ্ছে, সেখানে মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীর সংখ্যা নয়। বলা ভাল, প্রতিটি বাড়ি থেকেই কেউ কেউ না পরীক্ষা দিচ্ছে! মাইক ও ডিজে-এর বিকট শব্দে রীতিমতো নাজেহাল অবস্থা পড়ুয়াদের। স্থানীয় বাসিন্দাদের দাবি, দিনের বেলা কিছুক্ষণের জন্য রেহাই মিলছে ঠিকই। কিন্তু রাত নামলেই বাড়ছে মাইকের দাপট, চলছে গভীর রাত পর্যন্ত। কিন্তু খোদ রাজ্যপালের উপস্থিতিতে কী করে বাইক বাজিয়ে মেলার উদ্বোধন হল?পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। বিষয়টি খতিয়ে দেখার আশ্বাস দিয়েছে উলুবেড়িয়ার মহকুমাশাসক তুষার সিংলা। 

আরও পড়ুন: মাধ্যমিক পরীক্ষার মাঝেই মাইক বাজিয়ে অনুষ্ঠান, বিতর্কে খোদ রাজ্যের মন্ত্রী
 
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যে মাইক ও ডিজে বাজানো হয়েছিল, সেকথা স্বীকার করে নিয়েছেন মেলার কমিটির সম্পাদক ভোলানাথ মণ্ডল। তাঁর সাফাই, প্রতিবছরই মেলার উদ্বোধনের সময়ে মাধ্যমিক পরীক্ষাও চলে। পরীক্ষার্থীদের কথা চিন্তা করে শব্দের মাত্রা কমিয়ে বাইকে বাজানো হয়।