সন্দীপ মজুমদার, হাওড়া- করোনা আবহের মধ্য়েও বিরলতম নজিরের সাক্ষী থাকল হাওড়া। হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হিন্দু প্রতিবেশীর সৎকারে এগিয়ে এলেন মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষ। বাড়ি থেকে শ্মশান পর্যন্ত নিয়ে গিয়ে সৎকারের যাবতীয় কাজকর্মে হাত লাগালেন তাঁরা। অন্তোষ্টিক্রিয়া সম্পন্ন হওয়া পর্যন্ত সবকিছুই দাঁড়িয়ে থেকে দেখভাল করলেন। হাওড়ার উলুবেড়িয়ায় ২৫ নম্বর ওয়ার্ডের এই ঘটনা সম্প্রীতির বিরলতম নজির বলে জানিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

জানাগেছে, আদতে ঝাড়খন্ডের সিংভূম জেলার বাসিন্দা বছর  একষট্টির রঘুনাথ কুমার কিশোর বয়স থেকে মায়ের সঙ্গে ফতেপুরপুরে। সেখানে শেখ পিয়ার আলির বাড়িতে আশ্রয় নেন তাঁরা। ভিন্ন সম্প্রদায় হলেও তাঁদের সঙ্গে নীবীড় সম্পর্ক গড়ে ওঠে। 

স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, হৃদরোগে আক্রান্ত হয়েছিলেন রঘুনাথ কুমার। হাসপাতালে নিয়ে গেলে তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা। করোনা আবহের মধ্য়ে এই ঘটনা ঘটে যাওয়ায় সমস্যায় পড়েন পরিজনরা। স্বামীর সৎকার নিয়ে চিন্তায় পড়ে যান তাঁর স্ত্রী ও ভাই। কিন্তু রঘুনাথের স্ত্রীর মানসিক অবস্থা দেখে এগিয়ে আসেন শেখ পিয়ার আলি। সৎকারে হাত লাগানোর জন্য অন্যান্যদেরও। তারপর নিজেরাই উদ্য়োগ নিয়ে উলুবেড়িয়ে শতমুখী শ্মশানে রঘুনাথের দেহ নিয়ে গিয়ে সৎকার করেন তাঁরা। সম্পূর্ণ হিন্দু মতেই সৎকারের যাবতীয় কাজ কর্ম করেন। এই ঘটনায় মহামারি বিপর্যয়ের মধ্য়েও এমন সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির নজির বিরল বলে জানিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।