১২ জন উচ্চপদস্থ আধিকারিককে বাধ্যতামূলক অবসর নিতে বাধ্য করল কেন্দ্রীয় সরকার। তাঁরা প্রত্যেকেই পঞ্চাশ পেরোনো আয়কর দফতররের কর্মচারী। তাঁদের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে যৌন হেনস্থা, ঘুষ নেওয়া ও দুর্নীতির। এদের মধ্যে রয়েছেন  চিফ কমিশনার, প্রিন্সিপাল কমিশনার ও কমিশনারও। এই প্ৰথম এত বড় পদক্ষেপ গ্রহণ করল কেন্দ্র। এই তালিকার অন্যতম আয়কর দফতরের যুগ্ম অধিকর্তা অশোক আগরওয়ালের বিরুদ্ধে অভিযোগ আর্থিক দুর্নীতির।  ইডির ডেপুটি ডিরেক্টর এসকে শ্রীবাস্তবের বিরূদ্ধে অভিযোগ যৌন হেনস্থার। অভিযোগ দুই মহিলার সঙ্গে অভাব্য আচরণ করেছেন তিনি। আয়ের তুলনায় বেশি সম্পত্তি করার অভিযোগে অভিযুক্ত রাজস্ব আধিকারিক হোমি রাজবংশী। 

অভিযোগ অনেক কার্যকর্তাকে নিছক কাজে গাফিলতির কারণ দেখিয়েও বসিয়ে দেওয়া হয়েছে। ন্যূনতম নোটিশ পিরিয়ডও দেওয়া হয়নি তাঁদের। অথচ মৌলিক অধিকারের ৫৬ নং ধারার ১০ নং উপধারায় বলা হয়েছে, জনস্বার্থে সরকার কর্মচারীকে বরখাস্ত করতে পারে কিন্তু তাঁকে সেক্ষেত্রে নোটিশ দিতে হবে অন্তত তিন মাস আগে। এই পর্যায়ে তাঁকে কর্তৃপক্ষ ভাতা দিতে বাধ্য।

এখানেই প্রশ্ন উঠছে, হঠাৎ একযোগে এতজনের ওপর কোপ কেন?  রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ সোমবার এই নির্দেশ পেশ করেছেন। বলা হয়েছে জনস্বার্থে এই ১২ জনকে অব্যহতি নিতে বলা হয়েছে।