গত ১৬ এপ্রিল মহারাষ্ট্রের পালঘরে ২ সাধু ও তাঁদের গাড়ির চালককে গণপ্রহারের পর হত্যা করেছিল গ্রামবাসীরা। করোনাভাইরাস ও তাকে ঘিরে চলা লকডাউনের মাঝেও এই ঘটনাকে উত্তাল হয়েছিল গোটা দেশ। সেই ঘটনার স্মৃতি ফির হতে না হতেই ফের সাধুহত্যার ঘটনা ঘটল এদেশে। এবারের ঘটনাস্থল উত্তরপ্রদেশের বুলন্দশহর জেলা। মন্দিরের ভেতরে কুপিয়ে হত্যা করা হল দুই সাধুকে।

 

 

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে বুলন্দশহরের অনুপশহর কোতওয়ালি এলাকায় পাগোনা গ্রামে এই ঘটনা ঘটেছে। গ্রামের একটি শিবমন্দিরের দেখভাল করতে ২ সাধু। মন্দির চত্বরেই তাঁরা থাকতেন। সোমবার গভীর রাতে যখন দু'জনে ঘুমিয়েছিলেন সেই সময় তাঁদের ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে খুন করা হয়। এই ঘটনায় ইতিমধ্যে এক সন্দেহভাজন ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। জানা যাচ্ছে, হত্যা করার সময় অভিযুক্ত ব্যক্তি নেশাগ্রস্ত অবস্থায় ছিল।

আরও পড়ুন: করোনার ভ্যাকসিনের সঙ্গে এবার বাংলার যোগ, অক্সফোর্ডের গবেষক দলের সদস্য কলকাতার মেয়ে

আরও পড়ুন: আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়াল ১০ লক্ষ, জার্মানির মত চিনের কাছে ক্ষতিপূরণ দাবির পথে ট্রাম্প

এদিকে খুন হওয়া দুই সাধুর পরিচয় জানা গিয়েছে। একজনের নাম জগদীশ ওরফে রঙ্গি দাস (৫৫) এবং অপরজনের নাম শের সিং ওরফে সেওয়া দাস (৪৫)। বুলন্দশহরের এসএসপি সন্তোষ কুমার জানিয়েছেন, দু'দিন আগে দানপাত্র থেকে চুরি করা নিয়ে ওই দুই সাধুর সঙ্গে মুরারি ওরফে রাজু নামে এক ব্যক্তির ঝামেলা হয়। মঙ্গলবার ভোরে নেশাগ্রস্ত মুরারিকে হাতে তরোয়াল নিয়ে পালাতে দেখেন গ্রামবাসীরা। 

পুলিশের কাছে খবর পৌঁছতেই ঘটনাস্থল থেকে ২ কিলোমিটার দূরে মুরারিকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারির সময় অভিযুক্ত পুরোপুরি নেশাগ্রস্ত থাকায় তাকে তখন জিজ্ঞাসাবাদ করা যায়নি বলে জানিয়েছে পুলিশ। এই ঘটনায় উদ্বিগ্ন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ উচ্চপর্যায়ের তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন।