বিশ্বের নানা প্রান্তে ছড়িয়ে পড়েছে করোনাভাইরাস। গোটা দুনিয়ার ২১ লক্ষেরও বেশি মানুষ আক্রান্ত এই মারণ ভাইরাসে। ভারতেও কিন্তু ধীরে ধীরে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। ইতিমধ্যে করোনা সংক্রমণের কেস দেশে ১৩ হাজার ছাড়িয়ে গিয়েছে। আর দেশে করোনা আক্রান্ত রাজ্যগুলির মধ্যে মহারাষ্ট্র ও দিল্লির পরে তৃতীয় স্থানে রয়েছে তামিলনাড়ু। বর্তমানে রাজ্যটিতে আক্রান্তের সংখ্যা ১২৬৭। তবে এরমধ্যেই আশার আলো দেখছে প্রশাসন, তামিলনাড়ুতে প্রতিদিনই বাড়ছে করোনাকে জিতে সুস্থ হয়ে ওঠা মানুষের সংখ্যা। 

করোনা আবহেও পাকিস্তান রাফতানি করছে সন্ত্রাসবাদ, প্রতেবশী দেশকে এবার খোঁচা সেনা প্রধানের

লকডাউনের মাঝেই এলাহি আয়োজন, ছেলের বিয়ে দিয়ে বিতর্কে জড়ালেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী

করোনা আক্রান্ত বিশ্বে ভারত যেন 'দেবদূত', হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন পেল বিপন্ন ৫৫টি দেশ

বৃহস্পতিবার পর্যন্ত তামিলনাড়ুতে করোনাকে হারিয়ে সুস্থ হয়ে ওঠা মানুষের সংখ্যাটা ছিল ১৮০। শুক্রবার সুস্থ হয়ে একসঙ্গে বাড়ি ফিরলেন আরও ৩০ জন। এরা সকলেই দিল্লির নিজামুদ্দিনে তবলিগি জামাতের ধর্মীয় অনুষ্ঠানের সঙ্গে কোনও না কোনও ভাবে যুক্ত ছিলেন। এতদিন চেন্নাইয়ের ওমানদুরার সরকারি মাল্টি সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে তাঁদের চিকিৎসা চলছিল। তবে এখন সবার কোভিড টেস্টের রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। ফলে শুক্রবারই সবাইকে হাসপাতালে থেকে বাড়ি পাঠান হল। তার আগে প্রতিটি কোভিড ১৯ জয়ীর হাতে এক ব্যাগ করে ফল তুলে দেন হাসপাতাল কর্মীরা।

 

 

এদিকে তবলিগিদের নিয়ে দেশের বিভিন্ন হাসপাতাল ও কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে এতদিন নানা অভিযোগ শুনতে পাওয়া গিয়েছে। কোথাও নার্সদের সঙ্গে অভব্যতা আবার কোথাও বা আইসোলেশন ওয়ার্ড চেড়ে পালানোর চেষ্টা। বারবার সংবাদের শিরোনামে এসেছেন তাঁরা। তবে চেন্নাইয়ের হাসপাতালের পিরবেশ ছিল একেবারে আলাদ।  সুস্থ হয়ে ওঠা তবলিগিরা চিকিৎসাকর্মীদের প্রশংসা করে জানান, তাঁদের সকল সমস্যাই স্বাস্থ্যকর্মীরা মনোযোগ দিয়ে শুনেছেন। পাশাপাশি ইসলামে আল্লার বাণীর সঙ্গে চিকিৎসকদের পরামর্শের কোনও পার্থক্য নেই বলেই বিদায় বেলায় বলেন কোভিড জয়ীরা। বাড়ি ফিরলেও  চিকিৎসকদের কথা শুনে নিয়মিত হাত ধোবেন ও ভিড় এড়িয়ে চলবেন বলেই জানান সকলে।