৭৩তম স্বাধীনতা দিবসের উদযাপনে সামিল প্রধানমন্ত্রী থেকে মুখ্যমন্ত্রী ও অন্যান্য নেতা মন্ত্রীরা।  এদিন দিল্লির লালকেল্লায় প্রথা মেনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সন্ত্রাসবাদ দমন থেকে তিন তালাক, জল জীবন মিশন থেকে জিএসটি এই সমস্ত বিষয়গুলি তিনি তুলে ধরেন স্বাধীনতা দিবসের দিন লালকেল্লা থেকে ভাষনে। এক দেশ এক সংবিধানের জন্য ৩৭০-র ধারার বিলুপ্তি ও ৩৫-এ ধারার বিলুপ্তি হয়েছে। যার ফলে জম্মু ও কাশ্মিরের মানুষেরা সুযোগ সুবিধা পাবেন। তিন তালাক নিয়েও সরব হন মোদি, তিনি বলেন ' তিন তালাক উঠে যাওয়ার ফলে তাঁরা নিজেদের জীবন স্বাধীনভাবে ব্যবহার করতে পারবেন'।  
জল-জীবন মিশন- নতুন ভারত গড়তে হলে দেশের প্রতিটি ঘরে ঘরে পৌঁছোতে হবে বিশুদ্ধ পানীয় জল। এর জন্য ৩ লক্ষ ৫০ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। এছাড়া জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ, জিএসটি এই বিষয় গুলি তুলে ধরে তিনি নতুন ভারত গড়ার ডাক দেন। 

অন্যদিকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় রেড রোডে পতাকা উত্তোলন করেন। বর্নাঢ্য কুচকাওয়াজ-এর মাধ্যমে পালিত হয় এই অনুষ্ঠান। এছাড়া রেড রোডে অনুষ্ঠিত হয় ট্যাবলো। সেই ট্যাবলো জুড়ে ছিল মুখ্যমন্ত্রীর বিভিন্ন কর্মসূচির প্রতিফলন। কন্যাশ্রী শুরু করে নানা প্রকল্প পরিদর্শিত হয় রেড রোডের বুকে। বিভিন্ন বিদ্যালয়ের ছাত্র- ছাত্রীরা নানা অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে ফুটিয়ে তোলেন এই অনুষ্ঠান। এছাড়া জেলাগুলির তরফ থেকেও অনুষ্ঠান পালন করা হয়। ছৌ নাচ থেকে শুরু করে বাউলগীতি রবীন্দ্র সংগীত ও নজরুলগীতির মাধ্যমেও অনুষ্ঠান পালিত হয়। অসমিয়ার বিহুও প্রর্দশিত হয়। ট্রাফিক পুলিশ মোটরবাইকে অনন্য প্রর্দশন করেন। রেড রোডের এই অনুষ্ঠানেও ছিল সর্বত্র সর্ব-ধর্ম সমন্বয়ের ছোঁয়া। এদিন সোশ্যাল মিডিয়ায় লাইভ দেখানো হয় এই কুচকাওয়াজ-এর  অনুষ্ঠান।    

এদিকে অমিত শাহ নিজের বাড়িতে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করে পালন করেন স্বাধীনতা দিবস। সোশ্যাল মিডিয়ায় উঠে আসে সেই সব ছবি।