বিশ্ব গরীবি নিয়ে কাজের জন্য অর্থনীতিবিদ অভিজিৎ বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায় ও তাঁর স্ত্রী এস্থার ডাফলো সম্মানিত হলেন নোবেল পুরস্কারে। বাঙালির ঐতিহ্য বজায় রেখে এই বাঙালি নোবেল জয়ী দম্পতি মঙ্গলবার নোবেল পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে ধূতি ও শাড়ি বাঙালি সাজ নজর কাড়ে সকলের। নোবেল মঞ্চে  ধূতি-শাড়ি তে প্রথম দম্পতি তাঁরাই। স্টকহল্মের কনসার্ট হলে মঙ্গলবার ভারতীয় সময় রাত ৯ টায় আনুষ্ঠানিকভাবে সুইডিশ নোবেল কমিটি নোবেল পুরস্কার তুলে দেন অভিজিৎ বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায় ও এস্থার ডাফলোর হাতে। 

আরও পড়ুন- বিল পাসের আগেই নাগরিকত্ব, জানেন ৩ বছরে কতজন আফগান ও পাকিস্তানি 'ভারতীয়' হয়েছেন

শুধুমাত্র নোবেল হাতে তুলে নেননি উল্টে নোবেল কমিটি-কে দিয়েছেন উপহারও। উপহারে ছিল হাতের তৈরি ব্যাগ ও বই। ঘানার একের মহিলার হাতে বানানো ব্যাগ ও ভারতীয় স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা প্রথম-এর প্রকাশিত ছোটদের জন্য লেখা বই অভিজিৎ ও এস্থার তুলে দেন নোবেল কমিটির সদস্যের হাতে। মঙ্গবার নোবেল পাওয়ার পর গ্ল্যামস্ট্যানের মিউজিয়ামে গিয়ে এই উপহার তুলে দেন নোবেলজয়ী দম্পতি।

আরও পড়ুন- 'অমুসলিম শরণার্থী'র সংখ্যাটা ঠিক কত, রাজ্যসভায় কী হিসেব দিলেন অমিত শাহ

রীতি অনুযায়ী, যারা নোবেল জয় করেন তারা তাঁদের তরফ থেকে কোনও উপহার রেখে যান স্টক এক্সচেঞ্জ-এর এই যাদুঘরে। সেই রীতি বজায় রাখার জন্যই এই উপহার দান করেন তাঁরা। পাশাপাশি স্বাক্ষর করেন যাদুঘরে উপস্থিত ঐতিহ্যবাহী একটি চেয়ারেও। আগামী প্রজন্মের জন্য অর্থনীতির বিষয়ে আগ্রহ বৃদ্ধি করবে তাঁদের এই গবেষণা, এমনটাই মত নোবেলজয়ী যুগলের। নোবেলজয়ী দম্পতির থেকে এমন উপহার পেয়ে গর্বিত স্টক এক্সচেঞ্জ-এর এই যাদুঘরের প্রধান ইরিকা ল্যানারও।