প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর স্বপ্নের প্রজেক্ট হল এই বুলেট ট্রেন প্রকল্প। দেশের প্রথম বুলেট ট্রেন ছুটবে মুম্বই-আহমেদাবাদ রুটে। তবে মুম্বই-আহমেদাবাদগামী এই বুলেট ট্রেনের ভাড়া হতে পারে মাথাপিছু প্রায় তিন হাজার টাক। বৃহস্পতিবার ন্যাশনাল হাই স্পিড রেল কর্পোরেশন লিমিটেড (এনএইচএসআরসিএল)-এর তরফে জানানো হয়েছে। 

প্রসঙ্গত, মুম্বই-আহমেদাবাদ হাই স্পিড করিডোরের জন্য বরাদ্দ করা হয়েছিল ১৩৮০ হেক্টর জমি। তার মধ্যে এখনও পর্যন্ত আপাতত ৬২২ হেক্টর জমি অর্থাত মোটের ৪৫ শতাংশ কাজে লাগানো গিয়েছে। সূত্রের খবর, গুজরাত থেকে মহারাষ্ট্র পর্যন্ত এই এলাকায় ১৩৮০ হেক্টর জায়গার মধ্যে সরকারি,বেসরকারি, বনভূমি এবং রেলওয়ের জায়গাও রয়েছে।এনএইচএসআরসিএল-এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর অচল খাড়ে জানিয়েছেন, এখনও পর্যন্ত ৪৫ শতাংশ জমি কাজে লাগানো গেলেও, তারা ২০২৩-এর ডেডলাইন ধরেই কাজ এগোচ্ছেন। 

'এ তো ট্রেলার ছিল, সিনেমা এখনও বাকি আছে', সরকারের ১০০ দিনে মোদী উবাচ

রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্ক সংযুক্তিকরণের প্রতিবাদের জের, পুজোর মুখেই ধর্মঘটের ডাক

ফোনে স্বামীর সঙ্গে গল্পে মগ্ন, সঙ্গমরত দুটি সাপের ওপর বসে পড়লেন স্ত্রী, তারপর...

উৎসবের মেজাজে বিষাদের সুর, গণেশ বিসর্জনে নৌকোডুবিতে মৃত ১১

কর্তৃপক্ষের তরফে আরও জানানো হয়েছে, কাজ শুরু হবে আগামী বছর অর্থাত ২০২০ সাল থেকে। বুলেট ট্রেন করিডোরে আহমেদাবাদ থেকে মুম্বই-এর মধ্যে প্রায় ৫০৮ কিলোমিটার জায়গা জুড়ে ১২টি স্টেশন থাকবে। কাজ শেষ হয়ে যাওয়ার পর বুলেট ট্রেনের যাওয়া-আসা মিলিয়ে মোট ৭০টি ট্রিপ চলবে। আরও জানা গিয়েছে, যে ৫৩০০টি প্লট অধিগ্রহণের পরিকল্পনা করা হয়েছে, তাতে ইতিমধ্যেই প্রায় ২৬০০ জমি অধিগ্রহণ করা হয়ে গিয়েছে। গুজরাতের কৃষকরাও এই প্রকল্পের বিরেধী নন।