করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে ২৫ মার্চ লকডাউনের কথা ঘোষণা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তারপর থেকেই প্রায় বন্ধ ছিল আন্তর্দেশীয় উড়ান পরিষেবা। কিন্তু তৃতীয় পর্বের লকডাউন শেষ হওয়ার পর অন্তর্দেশীয় উড়ান পরিষেবা শুরু করেতে চলেছে এয়ার ইন্ডিয়া। আগামী ১৯ মে থেকে ২ জুন পর্যন্ত বিশেষ উড়ান পরিষেবা দেওয়া হবে বলেই সংস্থা সূত্রে জানান হয়েছে। যাত্রীদের আসন সংরক্ষণের জন্য টাকা দিতে হবে বলেও জানান হয়েছে।

এয়ার ইন্ডিার এক আধিকারিক জানিয়েছেন তাঁরা প্রস্তুত ছিলেন। অসামরিক বিমান পরিবহন মন্ত্রকের ছাড়পত্র পাওয়ার পরই  পরিষেবা চালু করতে তৎপরতা বেড়ে গিয়েছে। যারা যারা বিদেশ থেকে ফিরছেন তাঁদের বাড়ি পৌঁছে দেওয়াই মূল উদ্দেশ্য হবে। তবে স্বাস্থ্য বিধি মেনেই উড়ান পরিষেবা কার্যকর করা হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি। কোয়ারেন্টাইনে সমস্ত নিময় মানার পরই যাত্রীরা বিমানে চড়তে পারবেন বলেও সংস্থা সূত্রে খবর। প্রথমে ১৫ ও ১৭ মে পরিষেবা চালু করার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছিল। কিন্তু পরবর্তীকালে সিদ্ধান্ত বদল করে ১৯ মে থেকে পরিষেবা শুরুর কথা বলা হয়েছে। 

আরও পড়ুনঃ করোনা সংকটে শ্রমিকদের পাশে দাঁড়ানোর 'শাস্তি', কর্নাটক সরকার সরিয়ে দিল আইএএস মনিভান্নানকে ...

আরও পড়ুনঃ শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ট্রেনের কামরা কতটা নিরাপদ, করোনার সংক্রমণ আরও বাড়িয়ে দেবে না তো .

আরও পড়ুনঃ 'শিরোনাম ছাড়া আর কিছুই নেই' মন্তব্য চিদম্বরমের, বিকেলেই আর্থিক প্যাকেজ নিয়ে বিস্তারিত জানাবেন নির্ম...

এয়ার ইন্ডিয়া সূত্রে জানান হয়েছে দিল্লি থেকে ১৭৩, মুম্বই থেকে ৪০, হায়দরাবাদ থেকে ২৫ ও কোচি থেকে ১২টি বিমান চলবে। বিমানগুলি আমেদাব, জয়পুর, বেঙ্গালুরু, গোয়াসহ একাধিক শহরে যাত্রীদের পৌঁছে দেবে। ইতিমধ্যেই বন্দে ভারত প্রকল্পে কয়েক হাজার ভারতীয়দের বিশ্বের একাধিক দেশ থেকে ফিরিয়ে আনা হয়েছে। বন্দে ভারত প্রকল্পের দ্বিতীয় পর্বও শুরু করা হবে বলে কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে জানান হয়েছে। এই পরিস্থিতি আন্তর্দেশীয় বিমান পরিষেবা শুরু করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ বলেই মনে করছেন দেশের যাত্রীরা।