আগামী রবিবার দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে শপথ নেবেন অরবিন্দ কেজরিওয়াল। রামলীলা ময়দানে শুরু হয়ে গিয়েছে সাজো সাজো রব। বুধবার দিল্লির উপ-রাজ্যপাল অনিল বৈজালের সঙ্গে দেখা করে শপথ গ্রহণের দিনক্ষণ জানিয়ে আসেন কেজরিওয়াল। দলীয় বিধায়কদের সঙ্গে বৈঠকে আনুষ্ঠানিক ভাবে পরিষদয়ী দলেনতাও নির্বাচিত হন কেজরি। 

আরও পড়ুন: অপহরণ ও ধর্ষণের মামলা রুজু , বউ পিটিয়ে ফাঁসলেন ভাইরাল হওয়া পুলিশকর্তা

রামলীলা ময়দান থেকেই কেজরির রাজনৈতিক জীবনের হাতেখড়ি হয়েছিল। সেখানেই তৃতীয়বারের জন্য দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে শপথ নেবেন আপ সুপ্রিমো। একইসঙ্গে শপথ নেবেন কাঁর মন্ত্রিসভার সদস্যরাও। এর আগে ২০১৫ সালেও রামলীলা মনজানেই মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছিলেন তিনি। দলীয় সূত্রে খবর নিজের পুরনো মন্ত্রিসভাকেই অটুট রাখতে চাইছেন কেজরিওয়াল। 

আরও পড়ুন: আর উন্নয়নশীল নয়, ভারত এবার উন্নত দেশ, ট্রাম্পের সফরের আগে স্বীকৃতি দিল আমেরিকা

গত মঙ্গলবার দিল্লি বিধানসভা নির্বাচনের ফল বেরোতেই  কেজরিওয়ালের শপথে বিরোধী ঐক্য দেখা যাবে কীনা তা নিয়ে প্রশ্ন উঠতেল শুরু করেছিল। মাস খানেক আগেই ঝাড়খণ্ডে হেমন্ত সোরেনের শপথে বিজেপি বিরোধী দলগুলির শক্তি প্রদর্শন দেখা গিয়েছিল। এবার রাজধানীর রামলীলা ময়দানেও সেই চিত্র দেখা যাবে কীনা তা নিয়ে জল্পনা  দানা বাঁধছিল। শোনা যাচ্ছিল সব দলের নেতা-নেত্রীদেরই আমন্ত্রণ জানানো হবে কেজিরওয়ালের এই শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে। যদিও আপ নেতার করা একটি মন্তব্য  নিয়ে সন্দেহ দেখা দিয়েছে।

 

"কেবল মাত্র দিল্লিবাসীই শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত। অন্যরাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের এই অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো হচ্ছে না।" সংবাদ সংস্থা এএনআই-এর কাছে এমনটাই দাবি করেছেন বরিষ্ঠ আপ নেতা গোপাল রাই।

এরাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে অরবিন্দ কেজরিওয়ালের সম্পর্ক বরাবরই ভাল। দিল্লিতে আপের জয়কে স্বাগত জানিয়েছেন মমতা। কেজরির শপথ অনুষ্ঠানে যোগ দিতে তিনি রাজধানীও যেতে পারেন এমন ইজ্ঞিতও দিয়ে রেখেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যা।  শেষপর্যন্ত আপ সুপ্রিমো তাঁর অন্যতম প্রিয় নেত্রীকে আমন্ত্রণ জানান কিনা এখন সেটাই দেখার।