Asianet News BanglaAsianet News Bangla

শুরু হচ্ছে আসল চ্যালেঞ্জ, ভারত জোড়ো যাত্রার বড় পরীক্ষা বিজেপি শাসিত কর্ণাটকে

কর্ণাটকের ভারত জোড়া যাত্রা ২১ দিনে প্রায় ৫১১ কিলোমিটার দূরত্ব অতিক্রম করবে। বিধানসভা নির্বাচনের জন্য এই যাত্রাকে গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে। রাজ্য কংগ্রেস সভাপতি ডি কে শিবকুমারের দাবি, এই যাত্রা জনসমর্থন পাবে।

Bharat Jodo Yatra, after Kerala the next three states will be full of challenges for Rahul gandhi and congress bpsb
Author
First Published Sep 19, 2022, 7:32 AM IST

ভারত জোড়ো যাত্রা ১২ দিনে প্রায় ২০০ কিলোমিটার দূরত্ব অতিক্রম করে কেরলের চেপুদে পৌঁছেছে। আগামী ১২ দিনের জন্য, যাত্রাটি কেরালার বিভিন্ন জেলা পেরিয়ে পয়লা অক্টোবর কর্ণাটকে প্রবেশ করবে। এখান থেকেই শুরু হবে যাত্রার আসল পরীক্ষা। কারণ, কর্ণাটকে বিজেপির সরকার আছে এবং আগামী বছর রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচন হওয়ার কথা।

কর্ণাটকের ভারত জোড়া যাত্রা ২১ দিনে প্রায় ৫১১ কিলোমিটার দূরত্ব অতিক্রম করবে। বিধানসভা নির্বাচনের জন্য এই যাত্রাকে গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে। রাজ্য কংগ্রেস সভাপতি ডি কে শিবকুমারের দাবি, এই যাত্রা জনসমর্থন পাবে। তবে, দলের অনেক নেতা বিশ্বাস করেন যে পুরো যাত্রায় কর্ণাটক তামিলনাড়ু এবং কেরালার মতো একই সমর্থন নাও পেতে পারে।

২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে তামিলনাড়ু এবং কেরল উভয় রাজ্যেই ভাল ফল করেছে কংগ্রেস। দলের ৫২টি আসনের মধ্যে ২৩টি এই দুই রাজ্যের। রাহুল গান্ধীও ওয়ানাড থেকে সাংসদ। তবে উল্লেখ্য, কংগ্রেসের কর্ণাটকে মাত্র একটি লোকসভা আসন রয়েছে। ২০১৮ সালের বিধানসভা নির্বাচনে, দলটি ৮০টি আসন পেয়েছিল, কিন্তু এখনও পর্যন্ত ১০ জন বিধায়ক দল ছেড়েছেন।

Bharat Jodo Yatra, after Kerala the next three states will be full of challenges for Rahul gandhi and congress bpsb

কর্ণাটক প্রদেশ কংগ্রেসের এক প্রবীণ নেতার মতে, কর্মীরা যাত্রা নিয়ে উত্তেজিত। রাজ্যে এই যাত্রা সফল হবে এবং আগামী বিধানসভা নির্বাচনে এর সুফল পাওয়া যাবে। কর্ণাটকে কংগ্রেস জনতা দল (ধর্মনিরপেক্ষ) থেকে দূরত্ব তৈরি করছে। তাদের মতে, হাত শিবির বিজেপি এবং জেডিএস-এর বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে যাচ্ছি, এমন পরিস্থিতিতে উভয়ের থেকে নিজেদের দূরে রাখা স্বাভাবিক।

যুবসমাজের কর্মসংস্থানের জন্য কংগ্রেসের ‘ভারত জোড়ো যাত্রা’, খুব শীঘ্রই বাংলায় আসছেন রাহুল গান্ধী?

তেলেঙ্গানা এবং অন্ধ্রপ্রদেশের মানুষের কাছে পৌঁছানোর আশা করছে কংগ্রেস। কর্ণাটকের পর তেলেঙ্গানা ও অন্ধ্রপ্রদেশের মধ্য দিয়ে যাবে যাত্রা। এই রাজ্যগুলিতে কংগ্রেসের অবস্থান দুর্বল। তেলেঙ্গানা বিধানসভায় দলটি ১৯টি আসন পেয়েছে। একই সময়ে, ২০১৯ সালে, দলটি ১৭টির মধ্যে মাত্র তিনটি আসন পেতে সক্ষম হয়েছিল। আগামী বছর রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচন হওয়ার কথা। এমতাবস্থায় দলটি তার বক্তব্য জনগণের কাছে পৌঁছানোর চেষ্টা করবে।

হাওড়া শহরে ডেঙ্গি বড় বালাই, স্বাস্থ্য ও সাফাই বিভাগের সমস্ত কর্মীদের দুর্গাপুজোর ছুটি বাতিল 

অন্ধ্রপ্রদেশের বিভক্তির পরে, দলটি ২০১৯ সালের বিধানসভা নির্বাচনেও তার খাতা খুলতে পারেনি। লোকসভা নির্বাচনে একটি আসনও পায়নি দলটি। এমন পরিস্থিতিতে ভারত জোড়ো যাত্রার আসল পরীক্ষা শুরু হবে কর্ণাটক, তেলেঙ্গানা ও অন্ধ্রে। প্রায় পাঁচ মাসে সাড়ে তিন হাজার কিলোমিটার পথ পাড়ি দেওয়ার পর কাশ্মীরে শেষ হবে ভারত জোড়ো যাত্রা।

Follow Us:
Download App:
  • android
  • ios