তাঁকে নিয়ে নানা মুনির নানা মত। কেউ মনে করেন, আঠারো শতকের এই শাসক একজন স্বাধীনতা সংগ্রামী। আবার কারোর কারোর কাছে তিনি আরও একজন স্বৈরাচারী শাসক। এই বিতর্কের অবসান ঘটিয়ে টিপু সুলতানকে একেবারে ইতিবহাস বই থেকেই মুছে ফেলতে চাইছে কর্নাটকের বিজেপি সরকার। এমনই ইঙ্গিত দিয়েছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী বিএস ইয়েদুরাপ্পা।

আগামী ১০ নভেম্বর টিপুর জন্মদিন। বুধবার ইয়েদুরাপ্পা জানিয়েছেন, ওই দিন সরকারি তরফে কোনও অনুষ্ঠান করা হবে না। শুধু তাই নয়, স্কুলের পাঠ্যবই থেকেও টিপু সুলতানের যাবতীয় অস্তিত্ব মুছে ফেলার কথা ভাবনা চিন্তা করছে তাঁর সরকার।

জানা গিয়েছে, স্কুলপাঠ্য থেকে টিপুকে সরিয়ে দেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছেন মাদিকেরি বিধানসভা কেন্দ্রের বিজেপি বিধায়ক আপ্পাচু রঞ্জন। এই কেন্দ্রে মধ্য়েই পড়ে কোড়াগু এলাকা, যেখানকার বাসিন্দারা টিপুর অত্য়াচারের শিকার হয়েছিলেন। কংগ্রেস সরকার এর আগে যখন রাজ্যে সরকারিভাবে টিপুর জন্মজয়ন্তি পালন করা শুরু করেছিল,. তখন এই এলাকা থেকেই প্রতিবাদের ঝড় উঠেছিল।

কংগ্রেস বিজেপি সরকারের এই চিন্তা ভাবনাকে তাদের স্পর্ধার বহিপ্রকাশ হিসেবেই দেখছে। রাজ্যের কংগ্রেস নেতা দীনেশ গুন্ডু রাও জানিয়েছেন, প্রশাসনিক ব্যর্থতা ঢাকতেই এইসব অপ্রাসঙ্গিক বিষয়কে অনাবশ্যক গুরুত্ব দিচ্ছে বিজেপি সরকার। যারা ইতিহাসকে সম্মান করতে পারে না, তারাই এই ধরণের সিদ্ধান্ত নিতে পারে বলেও তিনি মন্তব্য করেছেন। তিনি আরও বলেন, প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি এপিজে আব্দুল কালাম থেকে শুরু করে বর্তমান রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোভিন্দ পর্যন্ত প্রত্য়েকেই টিপু সুলতানের অবদান নিয়ে সশ্রদ্ধ বক্তব্য পেশ করেছেন।