দিল্লির হিংসা বিধ্বস্ত খাস খাজুরি গলিতেই ছিল বিএসএফ জওয়ান মহম্মদ আনিসের বাড়ি। দুষ্কৃতীদের নজর পড়েছিল সেই বাড়ির দিকে। হিংসা চরিতার্থ করতে আরও ৩৫টি বাড়ির সঙ্গেই আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়েছিল বিএসএফ জওয়ান মহম্মদ আনিসের বাড়িতে। পরিবারের সদস্যরা সেই সময় বাড়িতে থাকলেও কর্মস্থলে ছিলেন আনিস। সুদূর মালকানগিরিতে ছিলেন বিএসএফ-এর ৯ নম্বর ব্যাটালিয়েনের জওয়ান। রবিবার দুপুরে বাড়ি ফিরেন তিনি। তখনও পোড়া গন্ধ বাড়িতে। আগুনের শিখার দাগ স্পষ্ট। পুড়ে যাওয়ার বাড়ির সামনে দাঁড়িয়ে চোখের জল আটকাতে পারেননি আনিস। কিন্তু বর্ডার সিকিউরিটি ফোর্সের আধিকারিকরা পাশে দাঁড়িয়েছিল আনিসের। 

আরও পড়ুনঃ তৃণমূল থেকে রাজ্য়সভায় প্রশান্ত কিশোর, এখনও সিদ্ধান্ত নেননি বললেন পিকে

সোমবারই বর্ডার সিকিউরিটি ফোর্সের তরফ থেকে বাড়ি মেরামতির জন্য ১০ লক্ষ টাকার একটি চেক তুলে দেওয়া হয়। বিএসএফ-এর ইন্সপেক্টর জেনারেল ডিকে উপাধ্যায় মহম্মদ আনিসের হাতে চেক তুলে দেন। পাশাপাশি হিংসায় বিধ্বস্ত বাড়ি অবিলম্বে মেরামতিরও উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। বিএসএফ-এর ডেপুটি ইন্সপেক্টর জেনারেল জানিয়েছেন, বাস্তুকারসহ ২৫ জন বিএসএফ জওয়ানের একটি দল তৈরি করা হয়েছে। যারা অবিলম্বে আনিসের বাড়ি মেরামতির কাজে হাত লাগাবে। পাশাপাশি তিনি আশা প্রকাশ করেন খুব তাড়াতাড়ি বাড়ি ফিরতে পারবে আনিস ও তাঁর পরিবার। 

আরও পড়ুনঃ অনুরাগ ঠাকুর, কপিল মিশ্রদের ঘৃণ্য মন্তব্যের বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া মামলা শুনবে সুপ্রিম কোর্ট, বুধবার হব

হিংসায় সব হারানো বিএসএফ জওয়ান মহম্মদ আনিসের পাশে দাঁড়িয়েছেন ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়ক । রবিবারই তাঁর ত্রাণ তহবিল থেকে  তিনি আনিসের বাড়ি মেরামতির জন্য দশ লক্ষ টাকা অর্থ সাহায্যের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। 

আরও পড়ুনঃ সুপ্রিমকোর্ট খারিজ করল পবনের আবেদন, রাত পোহালেই নির্ভয়ার ধর্ষকদের ফাঁসি নিয়ে এখনও ধন্দ

মহম্মদ আনিস বর্ডার সিকিউরিটি ফোর্সের নয় নম্বর ব্যাটালিয়ানের সদস্য। ২৮ বছরের এই জওয়ান মাত্র তিন মাস আগে বিয়ে করেছিলেন। আর কর্মজীবনের তিন বছর কাটিয়েছেন জম্মু কাশ্মীরে। বর্তমানে তিনি কর্মরত ওড়িশার মাওবাদী এলাকা মালকানগিরিতে। জীবন হাতে নিয়ে দেশের নিরাপত্তার কাজ করে চলেছেন তিনি। গত মাসের ২৫ তারিখে এতদল উন্মত্ত জনতা ধর্মের নামে  তাঁর বসত বাড়িতে তাণ্ডব চালিয়ে আগুন লাগিয়ে দিয়েছিল বলেই অভিযোগ। যে বাড়িতে ছিলেন নিরাপত্তা রক্ষীর বয়স্ক বাবাসহ আত্নীয় পরিজনরা। তবে তাঁর সহকর্মীরা পাশে দাড়িয়েছেন। হিংসায় ক্ষতিগ্রস্ত আনিসকে সবরকমভাবে সাহায্য করার প্রতিশ্রুতিও দিয়েছেন বিএসএফ কর্মীরা। একা আনিস নয়। দিল্লির হিংসায় বহু মানুষই বর্তমানে ভিটেমাটি হারিয়ে অনিশ্চয়তার মধ্যে দিন কাটাচ্ছে।