শনিবার পয়লা ফেব্রুয়ারি কেন্দ্রীয় বাজেট। পেশ করবেন অর্থমন্ত্রী নির্মলী সীতারমণ। তার আগে শুক্রবার সংসদে শুরু হল বাজেট অধিবেশন। প্রথা মেনে অধিবেশনের শুরুতেই ভাষন দিলেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। রাষ্ট্রপতির বাজেট ভাষণে উঠে এল নাগরিকত্ব আইনের প্রসঙ্গ। 

আরও পড়ুন: পিতৃবিয়োগে কর্মে অবিচল নর্থ ব্লকের অফিসার, ব্যস্ত থাকলেন বাজেটের কাজে

নাগরিকত্ব আইনের প্রশংসা শোনা গিয়েছে রাষ্ট্রপতির গলায়। কোবিন্দ বলেন, " দেশভাগের পর  জাতির জনক মহাত্মা গান্ধী বলেছিলেন, পাকিস্তান ও বাংলাদেশ থেকে আসা হিন্দু, শিখ, বৌদ্ধ, জৈন ও অন্যান্য ধর্মীয় সংখ্যালঘুরা এদেশে আসলে তারা যেন নাগরিকত্ব পান। আমাদের উচিত জাতির জনকের ইচ্ছেকে শ্রদ্ধা জানানো। সংসদের উভয় কক্ষে এই বিল পাশ হওয়ায় আমি খুশি।" রাষ্ট্রপতির এই বক্তব্য শোনার পর সরকার পক্ষের হাততালিতে ভরে ওঠে সংসদ ভবন। অন্যদিকে রাষ্ট্রপতির বক্তব্যের প্রতিবাদ জানায় বিরোধীরা।

আরও পড়ুন: শ্বশুর হতে চলেছেন বিল গেটস, মেয়ে জেনিফার পাত্র বাছলেন কাকে জেনে নিন

রাষ্ট্রপতি বলেন পারস্পরিক আলোচনা ও বিতর্ক গণতন্ত্রকে আরও জোরদার করে। অন্যদিকে প্রতিবাদের নামে সহিংসতা সমাজ ও দেশকে দুর্বল করে। এই প্রসঙ্গেই  রামজন্মভূমি নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের রায়ের পর দেশবাসীর পরিপক্ক আচরণের প্রশংসা করেন কোবিন্দ। 

সেন্ট্রাল হলে রাষ্ট্রপতির ভাষণে ৩৭০ ধারার প্রসঙ্গও উঠে এসেছে। ৩৭এ ধারা এবং ৩৭০ ধারা দুটি বাতিল কেবল ঐতিহাসিক নয় বরং এর ফলে জম্মু -কাশ্মীর ও লাদাখের বিকাশের পথ সুগম হবে বলে জানান কোবিন্দ। এই প্রসঙ্গে শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের স্বপ্নপূরণের কথাও উঠে আসে রাষ্ট্রপতির গলায়।