সংসদের যৌথ অধিবেশনে নতুন তিনটি কৃষি আইনের পক্ষেই সওয়াল করলেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। বাজেট অধিবেশনের সূচনায় যৌথ অধিবেশনে রাষ্ট্রপতির ভাষণের অধিকাংশ জুড়েই ছিল কৃষি আইনের সপক্ষে একাধিক বার্তা। মোদী সরকার কৃষকদের জন্য কী কী সদর্থক পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে  তা নিয়েও তিনি বার্তা দিয়েছেন। একই সঙ্গে সাধারণতন্ত্র দিবসের দিনে কৃষকদের ট্র্যাক্টর ব়্যালির তীব্র নিন্দা করেন তিনি। 

রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ বলেন কৃষকদের বিক্ষোভের কারণে নতুন তিনটি কৃষি আইন আপাতত স্থগিত করেছে সুপ্রিম কোর্ট। আর কেন্দ্রীয় সরকার সুপ্রিম কোর্টের সিদ্ধান্তকে পূর্ণ সম্মান জানাবে বলেও সংসদ থেকে বার্তা দিয়েছে রাষ্ট্রপতি। কেন্দ্রীয় সরকার আইন নিয়ে বিভ্রান্তি দূর করার পূর্ণ চেষ্টা করছে বলেও দাবি করেন তিনি। তবে কৃষক আন্দোলনের সমর্থনে সরকার বিরোধী ১৯টি দল যৌথ অধিবেশন বয়কটের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। আর সেই কারণে বিরোধী শূণ্য সংসদেই ভাষণ দিয়েছিলেন রাষ্ট্রপতি। একই সঙ্গে কৌশলে রাষ্ট্রপতি বুঝিয়ে দিয়েছেন কৃষি আইন প্রত্যাহারের পথে এখনই হাঁটছে  না সরকার। একই সঙ্গে সাধারণতন্ত্র দিবসের দিনে দিল্লিতে ট্র্যাক্টর মিছিল থেকে যে হিংসা ছড়িয়েছিল সেটিকে অত্যান্ত দুর্ভাগ্যজনক ঘটনা বলেও ব্যক্ত করেন। রাষ্ট্রপতি বলেন যদি সংবিধান আমাদের মত প্রকাশের স্বাধীনতা দেয়। তাহলে আইন ও নিয়ম শৃঙ্খলাকে গুরুত্বসহকারে পালন করা আমাদের দায়িত্বের মধ্যেই পড়ে। 

কড়া হাতে আন্দোলন দমনের পথে পুলিশ, গাজিপুর সীমানা খালি করার নির্দেশ, রাজদীপদের বিরুদ্ধে FIR ...

কৃষক মৃত্যু নিয়ে ভুয়ো টুইট, রীতিমত বিপাকে সাংবাদিক রাজদীপ সরদেশাই ..
কৃষি আইন নিয়ে রাষ্ট্রপতকি বলেন, দীর্ঘ আলোচনার পরই কৃষি আইন পাশ করা হয়েছে। নতুন তিনটি আইন দেশের ১০ কোটি ক্ষুদ্র কৃষককে তাৎক্ষণিভাবে উপকৃত করবে। তিনি আরও বলেন বর্তমান দেশের মোট জনসংখ্যা ৮০ শতাংশই ক্ষুদ্র কৃষক। যাদের সংখ্যা ১০ কোটির কিছু বেশি।  এদিন রাষ্ট্রপতির ভাষণের মধ্যেই কংগ্রেস ও লোকদলের কয়েক জন সাংসদ জয় কিষাণ জয় জওয়ান স্লোগান দিয়েছিলেন।