সিএএ অর্থাৎ নতুন নাগরিকত্ব আইনের  সমর্থন চেয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ টুইটারে গত  শুক্রবার একটি নম্বর শেয়ার করেছিলেন। তিনি জানিয়েছিলেন, ওই নম্বরে মিসড কল দিলেই এই আইনের পক্ষে সমর্থন নথিভুক্ত হবে। বিজেপির তরফেও ওই নম্বর প্রচার করা হয়। আর তারপরেই শুরু নতুন সমস্য়া।

আরও পড়ুন, মে মাসেই হবে এনপিআর আপডেট, মমতা-বিজয়নকে চ্যালেঞ্জ বিজেপি নেতার


 এদিকে শনিবারই অমিত শাহ-র টুইটারে ঘোষিত  নম্বরে ডায়াল করলেই মিলছে বিচিত্র প্রস্তাব। শর্ত একটাই, ওই নম্বরে ফোন করতে হবে। ফোন করতেই, সেই নম্বর থেকে একাকিত্ব কাটাতে বন্ধুত্ব-যৌনতার আমন্ত্রণ, বিনা খরচে বিনোদন অ্যাপের সাবস্ক্রিপশন, এমনকি চাকরির প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। দামি ঘড়ি, আইফোন, বিনোদন অ্যাপের সাবস্ক্রিপশনের অফারও দেওয়া হয়েছে একই নম্বর থেকে। একাধিক অ্যাকাউন্ট থেকে টুইট করা হয়,  ছ মাসের নেটফ্লিক্স সাবস্ক্রিপশন চাইলে এই নম্বরে ফোন করতে বলা হয়েছে। এই সুযোগ কেবল প্রথম ১০০ জনের জন্য,  নিজের ভাগ্য পরীক্ষা করতেও বলা হয়েছে।  কোথাও আবার নেটফ্লিক্সের সঙ্গে জুড়ে দেওয়া হয়েছে নিখরচায় হাজার জিবি ডেটা অথবা অ্যামাজন প্রাইম, হটস্টারের সাবস্ক্রিপশনের প্রলোভনও। আর এরপরই টুইটারেই সিএএ-বিরোধী অনেকে অভিযোগ তুলেছেন, ভুয়ো পরিচয়ে সিএএ-র পক্ষে বিপুল সমর্থন জোগাড় করতেই এমন কৌশল নিয়েছে বিজেপি। অর্থাৎ  সম্পূর্ণ অন্য কারণে ওই নম্বরে কেউ মিসড কল দিলে তা সিএএ-র পক্ষেই যাবে। নিমেশেই বাড়বে সিএএ  সমর্থকের সংখ্যা।

আরও পড়ুন, দাড়ি ছিঁড়ে নেওয়ার হুমকির পরই ইমরানের প্রবল সমালোচনা ওয়াইসির মুখে

পশ্চিমবঙ্গ বিজেপির আইটি সেলের সহ আহ্বায়ক জয় মল্লিক জানিয়েছেন,   দলের তরফে তারা ওই নম্বর প্রকাশ করেছেন।  ভুয়ো অ্যাকাউন্ট খুলে ওই নম্বরে প্রচার করার চেষ্টা দলের তরফে করা হয়নি।  বিজেপির কোনও কর্মী বা সমর্থক সিএএ-র পক্ষে জনমত সংগ্রহের জন্য এমন কাজ করে থাকলে তার দায়িত্ব দল  নিয়ে পারবে না। রাজ্য প্রশাসনের এক শীর্ষ কর্তা অবশ্য বলেন,  এটা আইনের চোখে প্রতারণা। প্রশাসনের তরফে যা ব্যবস্থা নেওয়ার তা নেওয়া হবে।