তবে কী শুরু হয়ে গেছে দেশে করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ? পাঁচ রাজ্যে ভোটের মুখে করোনাভআরিস সম্পর্কিত তথ্য উদ্বেগে ফেলে দিল দেশের স্বাস্থ্য় বিশেষজ্ঞদের। শনিবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তথ্য অনুযাযী দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছেন, ৬২ হাজার, ২৫৮ জন। মৃত্যু হয়েছে ২৯১ জনের। আর ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়ে যাওয়া মানুষের সংখ্যা ৩০ হাজার ৩৮৬।

প্রথম দফার ভোট নিয়ে কমিশনকে নিশানা মমতার, দিলীপ বললেন 'চাপে রয়েছে তৃণমূল' ... 

নন্দীগ্রামের বিজেপি নেতা প্রলয় পালকে ফোন মমতার, বিস্ফোরক অডিও ক্লিপ ফাঁস, কী বলেছিলেন তৃণমূল সুপ্রিম...

স্বাস্থ্য মন্ত্রকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী দেশে এখনও পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১ কোটি ১৯ লক্ষ ৯১০। সুস্থ হয়ে যাওয়া মানুষের সংখ্যা ১,১২,৯৫,০২৩। এখনও পর্যন্ত দেশে অ্যাক্টিভ কেসের সংখ্যা ৪.৫২.৬৪৭। মৃত্যু হয়েছে ১, ৬১,২৪০ জনের। এখনও পর্যন্ত ৫ কোটি, ৮১ লক্ষ ৯ হাজার ৭৭৩ জনকে করোনাভাইরাসের টিকা দেওয়া হয়েছে। 


স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তথ্য় অনুযায়ী অক্টোরর মাস থেকেই দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা  কমছিল। জানুয়ারি মাসে করোনা আক্রান্তের পরিসংখ্যন অনেকটাই স্বস্তি দিয়েছিল চিকিৎসা বিশেষজ্ঞদের। কিন্তু ফেব্রুয়ারি থেকে নতুন করে বাড়তে থাকে সংক্রমণ। স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তথ্য অনুযায়ী গত পাঁচ মাস পর আজ অর্থাৎ ২৭ মার্চ করোনাভাইরাসের দৈনিক সংক্রমণের পরিসংখ্যন ৬০ হাজারের সীমা অতিক্রম করল। শুক্রবার শুধুমাত্র মহারাষ্ট্রে আক্রান্তের সংথ্যা ছিল ৩৬ হাজারেও বেশি। পরিস্থিতি সামাল দিতে মহারাষ্ট্রে জারি করা হয়েছে রাত্রিকালীন কার্ফু। মহারাষ্ট্রেপ সঙ্গে পাল্লা দিয়ে দিল্লিতেও বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। সব মিলিয়ে দেশে করোনা-চিত্র আবারও উদ্বেগজন হতে চলেছে বলেও সতর্ক করেছেন বিশেষজ্ঞরা। টিকাকরণ কর্মসূচির পাশাপাশি মাস্কের ব্যবহার ও নিরাপদ শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখার আবেদন জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। একই সঙ্গে ভিড় এড়িয়ে চলার পরামর্শও দেওয়া দেওয়া হয়েছে।