দেশে গত কয়েকদিন ধরে প্রতিদিনই দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা রেকর্ড গড়ছিল। বুধবারও দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা থাকল ১০ হাজারের দোড়গোড়ায়। গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে করোনা সংক্রমণের শিকার হয়েছেন ৯৯৮৫ জন। গত মঙ্গলবার সংখ্যাটা ছিল ৯,৯৮৭ জন।

 

স্বাস্থ্যমন্ত্রকের দেওয়া পরিসংখ্যান অনুযায়ী বর্তমানে ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা পৌঁছে গিয়েছে ২ লক্ষ ৭৬ হাজার ৫৮৩ তে। করোনা আক্রান্ত দেশগুলির মধ্যে আমেরিকা, ব্রাজিল, রাশিয়া ও ব্রিটেনের পরেই এখন রয়েছে ভারত। গত ২৪ ঘণ্টায় মারণ সংক্রমণ প্রাণ কড়েছে ২৭৯ জনের। ফলে দেশে করোনায় মৃতের সংখ্যা এখন বেড়ে হয়েছে ৭,৭৪৫।

তবে এর মধ্যেও আশার খবর শুনিয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রক। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনা থেকে সুস্থ হয়ে উঠেছেন প্রায় ১০ হাজার। স্বাস্থ্যমন্ত্রক জানাচ্ছে এখনও পর্যন্ত দেশে করোনা থেকে সুস্থ হয়ে উঠে স্বাভাবিক জীবনে ফিরেছেন ১ লক্ষ ৩৫ হাজার ২০৬ জন। ফলে দেশে বর্তমানে সক্রিয় আক্রান্তের সংখ্যা ১ লক্ষ ৩৩ হাজার ৬৩২। এই প্রথম দেশে সুস্থ হওয়ার সংখ্যা সক্রিয় করোনা আক্রান্তের সংখ্যাকে ছাড়িয়ে গেল। 

জন্মদিনেই করোনা কেড়ে নিল প্রাণ, চলে গেলেন তামিলনাড়ুর ডিএমকে বিধায়ক জে আনবাঝাগন

জুলাইয়ের শেষে দিল্লিতে আক্রান্ত হবেন সাড়ে ৫ লক্ষ, এখনও গোষ্ঠী সংক্রমণ মানতে নারাজ সরকার

গতবছর ডিসেম্বর নয় অগস্টেই করোনা ছড়ায় উহানে, চাঞ্চল্যকর দাবি হার্ভার্ডের

এদিকে আবার করোনা আক্রান্তের সংখ্যায় এবার চিনের উহানকে ছাড়িয়ে গেল দেশের বাণিজ্য রাজধানী। বর্তমানে মুম্বইতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৫১ হাজার ছাড়িয়েছে। যা মারণ ভাইরাসের উৎসস্থল উহান শহরের মোট আক্রান্তের তুলনায় প্রায় ৭০০ বেশি। 

করোনা সংক্রমণে এখনও দেশের একনম্বরে রয়েছে মহারাষ্ট্র। রাজ্যটিতে আক্রান্তের সংখ্যা ৯০ হাজার ছাড়িয়ে গিয়েছে। সোমবারই চিনকে করোনা সংক্রমণের সংখ্যায় ছাড়িয়ে চলে যায় মারাঠা রাজ্য। বর্তমানে চিনে আক্রান্তের সংখ্যা ৮৪ হাজারের কাছাকাছি। জাতীয় রাজধানী দিল্লিতে আক্রান্তের সংখ্যা ৩১ হাজার ছাড়িয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দিল্লিতে সংক্রমণের শিকার হয়েছেন ১,৩৬৬ জন। দিল্লির উপমুখ্যমন্ত্রী মণীশ সিসোদিয়ার আশঙ্কা, জুলাইয়ের শেষেই রাজধানী দিল্লিতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৫ লক্ষের গণ্ডি ছাড়িয়ে যাবে।