দলিত হয়ে উচ্চ বর্ণের উচ্চ বর্ণের তরুণীকে ভালোবাসার চরম শাস্তি পেল বছর কুড়ির তরুণ। অকালে ঝরে গেল তাঁর প্রাণ। প্রেমিকার আত্মীয়রা চরম নৃশংসভাবে তাঁকে পিটিয়ে মেরে ফেলে বলে অভিযোগ। মৃত্যুর আগে দেওয়া জবানবন্দি থেকে জানা গেছে লোহার রড আর পাথর দিয়ে থেঁতলে দেওয়া হয়েছিল। তার আগে অবশ্য একটি টেম্পো দিয়ে তাঁকে ধাক্কা মারা হয়। মাটিতে পড়ে গেলে প্রেমিকার পরিবারের ৬ সদস্য ঝাঁপিয়ে পড়ে। দীর্ঘক্ষণ ধরে চলে বর্বরতা। 

 দলিত যুবক বিরাজ বিশাল জগপত পুনের শহরতলী পিম্পিল সওদাগর এলাকার বাসিন্দা। গত ৭ জুন প্রেমিকার বাড়ি থেকে একটি ফোন পেয়ে মোটরবাইক নিয়ে বেরিয়ে গিয়েছেন। নিহতের পরিবার জানিয়ে তাঁদের সম্পর্ক নিয়ে কথা বলার জন্যই তরুনীর বাড়ি থেকে ডাকা হয়েছিল। অভিযোগ প্রেমিকার বাড়ি ঢোকার সঙ্গে সঙ্গে বিরাজকে অশালীনভাষায় তাঁর জাত তুলে অপমান করে তরুনীর পরিবারের সদস্যরা। তারপরই বিরাজ প্রেমিকার বাড়ি ছেড়ে বেরিয়ে যায়। এখানেই শেষ হয় না। রাস্তাতে একটি টেম্পো বিরাজকে ধাক্কা মারে। রাস্তা পড়ে যাওয়ার পর প্রেমিকার বাবা কাকাসহ পরিবারের মোট ৬ সদস্য ঝাঁপিয়ে পড়ে দলিত যুবকের ওপর। লোহার রড, লাঠি আর পাথর দিয়ে থেঁলতে দেওয়া হয়। আধমরা করে রাস্তার ধারেই ফেলে রেখে চলে যায়। সেই অবস্থাতাতেই বাঁচার জন্য পরিবারের সদস্যদের ফোন করে বিরাজ।

প্রায় আড়াই কিলোমিটার পিছিয়ে গেল চিনা সেনা, লাদাখ সীমান্তে কি উত্তাপ কমার ইঙ্গিত ..

আনলক পর্বে চোরা স্রোতের মত বাড়তে পারে করোনা আক্রান্তের সংখ্য়া, বড় বিপদের ইঙ্গিত বিশেষজ্ঞদের ..

অর্ধমৃত অবস্থায় বিরাজকে ভর্তি করা হয় স্থানীয় একটি হাসপাতালে। সেখানেই মৃত্যু হয় তাঁর। পুনের পুলিশ জানিয়েছে বিএ দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র ছিল বিরাজ। আর্থিক স্বচ্ছলতার জন্য পড়াশুনার পাশাপাশি পরিবহন ব্যবসার সঙ্গেও যুক্ত ছিল বিরাজ। যখন এক বছর বয়স তখন বিরাজ তাঁর বাবাকে হারিয়ে ছিল। দুধের সন্তানকে আঁকড়ে ধরেই বাঁচার রাস্তা দেখেছিলেন বিরাজের মা। বর্ণের অহংকারে এক দল মানুষে বিধবা দলিত মহিলার সেই রাস্তাটাই ছিমিয়ে নিল বলে অভিযোগ।

'অমিত শাহ ভোটের জন্য ক্ষুধার্ত' নিশানা পার্থর, বিজেপি ভার্চুয়াল থাকবে বললেন অরূপ ...

বিরাজের পরিবারের অভিযোগ, তিনি যখন রাস্তার ধারে পড়েছিলেন তখনও তার মুখে থুথু ছিটিয়ে দিয়েছিল প্রেমিকার বাবা। বাঁচার জন্য  করুণ আর্তি না শুনে তাঁকে রাস্তায় রক্তাক্ত অবস্থায় ফেলে দিয়ে চলে গিয়েছিল তরুনীর পরিবারের সদস্যরা।  দলিত যুবক হয়েও কেন সে উচ্চবর্ণের এক তরুনীকে ভালোবেসেছিল? এই অপরাধে মাত্র ২০ বছরের তরুণকে পিটিয়ে মেরে ফেলা হয় বলে অভিযোগ। 

পুনের পুলিশ জানিয়েছে বিরাজের বয়ানের ওপর ভিত্তি করে ৬ অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ধৃতদের মধ্যে ২ জন নাবালক হওয়ায় তাদের পাঠাম হয়েছে হোমে। ধৃতদের আদালতে পেশ করা হলে ৭ দিনের পুলিশ হেফাজতের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ধৃতদের বিরুদ্ধ হত্যা, অবৈধ জমায়েত, দাঙ্গা লাগানো সহ একাধিক ধারায় মামলা দায়ের হয়েছে।