হাড় কাঁপানো ঠান্ডায় কাঁপছে রাজধানী দিল্লি। টানা ১৪ দিন ধরে শৈত্যপ্রবাহ চলছে রাজধানীতে। ১৯৯৭ সালে ১৩দিন ধরে চলেছিল শৈত্যপ্রবাহ। এবার ভেঙে গেল সেই রেকর্ডও। শনিবার সকালে দিল্লির তাপমাত্রা নেমে গেল ২.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াসে।

দিল্লির সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ১৯.৪ ডিগ্রির আশেপাশে ঘোরাফেরা করছে। ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত পরিস্থিতি পরিবর্তনের কোনও আশা নেই বলেই জানাচ্ছে আবহাওয়া দফতর। 

আরও পড়ুন: হল না শেষ রক্ষে, ১৭ ঘণ্টা পর উদ্ধার হল বাঁশদ্রোণীর কুয়োয় পড়ে যাওয়া যুবকের দেহ

তথ্য বলছে ১৯০১ সালের পর এটাই সবচেয়ে শীতলতম ডিসেম্বর রাজধানীতে। ১৯৯২ সালের পর হাড় কাঁপানো ঠান্ডা পেয়েছিলেন দিল্লীবাসী ১৯৯৭, ১৯৯৮, ২০০৩ এবং ২০১৪ সালে। ১৯৯৭ সালে ডিসেম্বরে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ১৭.৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

 

 

 

সকালে ঘন কুয়াশা আর শৈত্যপ্রবাহ আরও ২দিন চলবে বলে পূর্বাভাস দিচ্ছে হাওয়া অফিস। বর্ষশেষের রাতে হালকা বৃষ্টিও হতে পারে রাজধানী ও সংলগ্ন এলাকায়। ২ জানুয়ারি পর্যন্ত বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। 

আরও পড়ুন: ২০১৯ সালে বিশ্বের প্রথম ৫০০ জন ধনীর সম্পত্তি বেড়েছে ১.২ ট্রিলিয়ন ডলার, উঠে আসল চাঞ্চল্যকর রিপোর্ট

গত ১৮ ডিসেম্বর দিল্লির সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ১২.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। হাঁড় কাঁপানো ঠান্ডার সঙ্গেই দিল্লি সহ আশেপাশের এলাকায় রয়েছে ঘন কুয়াশা। যার জেরে বিমান ও ট্রেন চলাচলে বিঘ্ন ঘটে। 

দিল্লির পাশাপাশি পঞ্জাব, হরিয়ানা, চণ্ডীগড়, রাজস্থান ও উত্তরপ্রদেশে শৈত্যপ্রবাহ চলছে। হিমাচলপ্রদেশ ও কাশ্মীরে তাপমাত্রা নেমে গেছে হিমাঙ্কের নিচে।