শুক্রবার দুপুরে পা পিছলে কুয়োয় পড়ে গিয়েছিল এক যুবক। চেষ্টা করেও জীবিত উদ্ধার করা গেল না ওই যুবককে। ১৭ ঘণ্টা পর কুয়ো থেকে ওই যুবকের দেহ উদ্ধার করল স্থানীয় এক কুয়ো মিস্ত্রি মেঘনাথ সর্দার। 

শুক্রবার দুপুরে স্নান করতে গিয়ে উধাও হয়ে যান বাঁশদ্রোণীর সোনালি পার্কের বাসিন্দা বছর তিরিশের বাপি সরকার। বাকি কুয়োয় পড়ে গেছেন বুঝতে পেরে শুরু হয় উদ্ধারকাজ।  সন্ধে সাড়ে পাঁচটায় নামানো হয় ডুবুরিও। দমকলকর্মীরাও উদ্ধার কাজে হাত লাগান। প্রায় পঞ্চাশ ফুট গভীর পাতকুয়োয় উদ্ধারকাজে হত লাগাতে আসে বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীও। 

আরও পড়ুন : ২০১৯ সালে বিশ্বের প্রথম ৫০০ জন ধনীর সম্পত্তি বেড়েছে ১.২ ট্রিলিয়ন ডলার, উঠে আসল চাঞ্চল্যকর রিপোর্ট

সন্ধে সাতটা নাগাদ কুয়োয় মধ্যে যুবকের হদিশ মেলে। কিন্তু কুয়ো থেকে তুলতে গিয়ে ঘটে বিপত্তি। দেহ থেকে দড়ি খুলে যাওয়ায় ফের কুয়োয় পড়ে যান যুবক। 

আরও পড়ুন: নিজের একটি ভুলেই খালি হয়ে যেতে পারে আপনার অ্যাকাউন্ট, এখনই সর্তক হোন

রাত দশটা পর্যন্ত উদ্ধারকাজ চালানোর পর দমকল জানায় শনিবার সকাল থেকে ফের শুরু হবে যুবককে উদ্ধারের কাজ। যদিও দমকলের এই সিদ্ধান্ত মানতে রাজি ছিল না পরিবার। রাতেই যুবককে কুয়ো থেকে তোলার দাবিতে সরব হন স্থানীয়রা।  কাউন্সিলরের সামনে চলে বিক্ষোভ প্রদর্শন। দমকলের ভূমিকায় ক্ষুব্ধ পরিবারকে বোঝাতে ঘটনাস্থলে যেতে হয় খোদ মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাসকে। দমকলের তরফে জানানো হয়, শনিবার সকাল থেকেই ফের উদ্ধারকাজ শুরু হবে। 

তবে দমকল ময়দানে নামার আগেই শনিবার সকালে কুয়ো থেকে ওই যুবকের দেহ উদ্ধার করে নিয়ে আসেন স্থানীয় কুয়ো মিস্ত্রি মেঘনাথ সর্দার। বাপির দেহ উদ্ধার হতেই শোকের ছায়া নেমে আসে গোটা এলাকায়। এই যুবকের মৃগী রোগ ছিল বলে পরিবার সূত্রে জানা গেছে।